রবিবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১

মোবাইল চুরির অপবাদে শিশুকে পিটিয়ে জখম

  |   রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | প্রিন্ট  

মোবাইল চুরির অপবাদে শিশুকে পিটিয়ে জখম

সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার হাটিকুমরুল ইউনিয়নের চড়িয়া শিকার দক্ষিণ পাড়া কওমি মাদ্রাসার ছাত্র মেরাজুল ইসলামকে (৯) মোবাইল চুরির অপবাদ দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মাদ্রাসার শিক্ষক মোহতামিম এরশাদকে রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে আটক করেছে পুলিশ।
আহত মাদ্রাসা ছাত্র মেরাজুল ইসলাম সলঙ্গা থানার হাটিকুমরুল ইউনিয়নের চড়িয়া শিকার দক্ষিণ পাড়া কওমি মাদ্রাসার ও থানার লাঙ্গলমোড়া গ্রামের হামিদুল ইসলামের ছেলে।
জানা যায়, শনিবার বেলা ১২ টার দিকে থানার হাটিকুমরুল ইউনিয়নের চড়িয়া শিকার দক্ষিণ পাড়া কওমি মাদ্রাসার শিক্ষক মোহতামিম এরশাদ তার কক্ষে মোবাইল ফোন রেখে গোসল করতে যায়। ফিরে এসে মোবাইল না পেয়ে মাদ্রাসার ছাত্র মো. মেরাজুল ইসলামকে সন্দেহ করে। পরে ঘরে আটকে রেখে বাঁশের কুনচি দিয়ে হাত পা ও পিঠে বেধড়ক পিটিয়ে জখম করে।
এ ঘটনার খবর পেয়ে তার স্বজনরা মাদ্রাসায় এসে আশঙ্কাজনক অবস্থায় মিরাজকে উদ্ধার করে স্থানীয় সাখাওয়াত এইচ মেমরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি করে।
আহত মাদ্রাসার ছাত্রের মা সোনালি খাতুন বলেন, মাদ্রাসার মোহতামিম এরশাদ আলী তার কক্ষে মোবাইল ফোন রেখে গোসল করতে যায়। ফিরে এসে মোবাইল না পেয়ে আমার মেরাজুল ইসলামকে সন্দেহ করে। পরে ঘরে আটকে রেখে বাঁশের কুনচি দিয়ে হাত পা ও পিঠে বেধড়ক পিটিয়ে জখম করে। কিন্তু আমার ছেলের কাছে মোবাইল ফোন পায়নি। অযথা আমার শিশু সন্তানকে মারধর করেছে। তিনি মাদ্রাসার এই শিক্ষকের শাস্তি দাবি করেন।
সলঙ্গা থানার ভারপাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল কাদের জিলানী জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে শিশু নির্যাতনের অভিযোগে মাদ্রাসার শিক্ষকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনআনুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


Posted ১০:৫৫ পিএম | রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement