• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    শহীদ জনুর ছবিটি খুঁজে পেয়েছি

    আবীর আহাদ | ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১১:৩৮ অপরাহ্ণ

    শহীদ জনুর ছবিটি খুঁজে পেয়েছি

    আজ একদিকে আমি পরম সৌভাগ্যবান ও খুশি, অপরদিকে চরম দু:খী ও বেদনায় ভারাক্রান্ত । আমার যুদ্ধদিনের একান্ত সাথী ও বন্ধু শহীদ শাহাবুদ্দিন আহমদ জনুর ছবিটি আজ প্রায় আটচল্লিশ বছর পর হাতে পেলাম । ছবিটি এতোদিন আমার কাছে না-থাকলেও আমার হৃদয়পটে জনুর চেহারা ও স্মৃতি ঠিকই জ্বলজ্বল করে ভেসে আছে । বহু চেষ্টা করে আজই শাহাবুদ্দিন জনুর ছোটভাই শামসুল আলমের নিকট থেকে ছবিটি পেলাম । এ-জন্য অবশ্য প্রথমে ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য কাশিয়ানীর একজন সাংবাদিক প্রিয়ভাজন ফায়েকুজ্জানের । তার মাধ্যমেই শামসুল আলমকে খুঁজে পেলাম—–পেলাম শহীদ জনুর ছবিটিও ।
    শাহাবুদ্দিন জনু মুক্তিযুদ্ধের সময় গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী থানায় আমার কমান্ডের সি-ইন-সি স্পেশাল বাহিনীর সদস্য । আমরা উভয়ে বিহারের চাকুলিয়া থেকে মুক্তিযুদ্ধের সামরিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি । আমরা জুলাই মাসের 25/26 তারিখে ভারত থেকে এসে প্রথমে ধোপড়া নামক গ্রামে ক্যাম্প স্থাপন করি । সেখান থেকে আমরা 2/4 দিন পর পর ভাটিয়াপাড়াস্থ পাকিস্তানের ঘাঁটিতে ঝটিকা আক্রমণ করতে থাকি । প্রতিটা ঝটিকা আক্রমণে জনু খুবই বীরত্বের স্বাক্ষর রেখেছিলো ।


    সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি নবম সেক্টর হেডকোয়ার্টার থেকে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অভিযুক্ত ক্যাপ্টেন নূর মোহাম্মদ বাবুল সাব-সেক্টর কমাণ্ডার হিশেবে প্রথমে কাশিয়ানীর ওড়াকান্দী ও পরে রামদিয়া কলেজে হেডকোয়ার্টার স্থাপন করেন এবং কাশিয়ানীর সবক’টি মুক্তিযোদ্ধা গ্রুপকে একত্রিত করেন——


    31 অক্টোবর । রোববার । ভাটিয়াপাড়া থেকে মধুমতি নদী দিয়ে পাকি সেনা ও খাদ্যশস্য ভর্তি তিনটি লঞ্চ গোপালগঞ্জ যাওয়ার পথে ফুকরা নামক স্থানে আমরা তাদের সাথে সম্মুখ যুদ্ধে লিপ্ত হই । আমি ও জনু একই বাঙ্কারে থেকে যুদ্ধ করি । তুমুল যুদ্ধের এক পর্যায়ে পাকিবাহিনীর গুলীবিদ্ধ হয়ে আমারই কোলের ওপর জনু শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করে । মৃত্যুর আগে জনু ক্ষীণকন্ঠে বলেছিলো, দোস্ত ! মা-কে বলিস, আমি খুলনায় বদলি হয়ে গেছি——-!

    এ-কাহিনী আমি আমার বইসহ একাধিক নিবন্ধে বিশদভাবে বর্ণনা করেছি । আমার একটা দু:খ ছিলো যে শাহাবুদ্দিন জনুর কোনো ছবি আমার কাছে ছিলো না । ফায়েকুজ্জামানের বাড়ি আর শহীদ জনুর বাড়ি একই গ্রাম : পোনা । ফলে জনুর একটা ছবির জন্য তাকে প্রায় কয়েক বছর ধরে তাগিদ দিয়ে আসার পর আজই শহীদ শাহাবুদ্দিন জনুর ছবিটি আমার হস্তগত হলো ।

    শাহাবুদ্দিন জনুর ছোটভাই শামসুল আলম প্রেরিত জনুর ছবিটি যখন আমার ম্যাসেঞ্জারে ভেসে উঠলো, তখন একরাশ কান্নায় আমার বুক ভরে গিয়েছিলো । নিজের অজান্তে ক’-ফোটা অশ্রু ঝরে পড়েছিলো তা লক্ষ্য করিনি—–

    জনু ! বাকি দিনগুলি তুমি আমার কাছেই থাকো, বন্ধু !
    প্রথম ছবিটা জনুর, অপরটা আমার ।

    আবীর আহাদ
    মুক্তিযোদ্ধা লেখক গবেষক
    চেয়ারম্যান, একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4669