• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    শিমুলিয়া-কাঁঠারবাড়ী নৌরুটে অচলাবস্থা

    | ২৯ জুলাই ২০২০ | ৭:০৯ অপরাহ্ণ

    শিমুলিয়া-কাঁঠারবাড়ী নৌরুটে অচলাবস্থা

    বন্যার পানির স্রোতে আর করোনার প্রভাবে দেশের অন্যতম শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকদিন পর ঈদ হলেও শিবচরের কাঠালবাড়ি ঘাটে যাত্রীদের চাপ নেই ঘাট এলাকায়। তবে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ায় ঘাট এলাকায় পন্যাবাহী পরিবহনের চাপ রয়েছে। দুই ঘাটে আটকে পড়েছে অন্তত তিন শতাধিক পরিবহন।


    ঘাট কর্তৃপক্ষ জানান, গত কয়েকদিন ধরে বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় পদ্মা নদীতে বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটের লৌহজং চ্যানেলে ঘূর্ণিমান স্রোত আর অসংখ্য ডুবোচরের কারণে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়াও দু’টি ঘাট পানিতে তলিয়ে গেছে। এই ঘাট ব্যবহার করে ছোট বড় ৭টি ফেরি চলাচল করছে।


    সরেজমিন আজ বুধবার দুপুরে দেখা গেছে, ঘাট এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে পন্যাবাহী পরিবহনের চাপ। তবে যাত্রীবাহি পরিবহনের খুব একটা চাপ নেই। ব্যক্তিগত পরিবহনও কিছুটা রয়েছে। ঈদ আসন্ন হওয়ায় ঘরমুখো যাত্রীদের চাই নেই বললেই চলে।

    কাঠাঁলবাড়ি ঘাটের লঞ্চ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান বলেন, তীব্র স্রোতের কারণে নৌযান চলাচল ব্যহত হচ্ছে।

    ধারনা করা হচ্ছে করোনার কারণে যাত্রীদের চাপ এখনও বাড়েনি। তবে যাত্রী চাপ বাড়রে হিমসিম খেতে হবে। ভোগান্তিতে পড়বে যাত্রীরা। কারন আগে ১৭টি ফেরি ও ৮৬টি লঞ্চ চলাচল করতো। এখন বৈরী পরিবেশের কারনে মাত্র ৭টি ফেরি ও ৫৬টি ল চলাচল করছে। একারেন সৃষ্টি হয়েছে অচলাবস্থা।
    মাদারীপুরের সহকারী পুলিশ সুপার আবির হোসেন বলেন, এবারের ঈদের ঘরমুখো যাত্রীদের তেমন চাপ নেই। অন্যান্য ঈদের তুলনায় যাত্রী সংখ্যা খুবই কম। পাড়াপারের অপেক্ষায কিছু পণ্যবাহি পরিবহন রয়েছে। তবে তীব্র স্রোতে থাকায় নৌযান চলাচলা ব্যহত হচ্ছে। যাত্রী সংখ্যা বাড়লে ভোগান্তি বাড়বে।

    বিআইডব্লিউটিসির কাঠাঁলবাড়ি ঘাটের ম্যানেজার আব্দুল আলিম বলেন, এই রুটে ১৭ ফেরি থাকলেও বর্তমানে ছোট বড় ৭টি ফেরি চলাচল করছে। এ চলাচল করছে। এছাড়াও ৫৬টি ল ও দেড় শতাধিক স্পীডবোট চলাচল করছে। রাতে সব ধরণের নৌপরিবহন বন্ধ থাকে। তবে আজকে পর্যন্ত তুলনা মুলক যাত্রী চাপ কম।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4670