• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    শেখ তাপসের মনোনয়ন সংগ্রহ চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে সাঈদ খোকনের কপালে

    ডেস্ক | ২৬ ডিসেম্বর ২০১৯ | ১০:৩৩ অপরাহ্ণ

    শেখ তাপসের মনোনয়ন সংগ্রহ চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে সাঈদ খোকনের কপালে

    ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকনকে সচরাচর হাসিমুখেই দেখা যায়। দুদিন আগেও তিনি নিজেকে সফল মেয়র দাবি করেছিলেন। মেয়র পদে আবারো মনোনয়ন পাওয়া নিয়ে আশার কথাও বলেছিলেন। তবে বৃহস্পতিবার দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে গিয়ে কেঁদেছেন তিনি। পাশে চেয়েছেন নগরবাসীকে। বলেছেন, আজকে রাজনীতিতে তার জন্য একটু কঠিন সময় যাচ্ছে। তার এই ‘কঠিন সময়ে’ তিনি দেশবাসী ও ঢাকাবাসীর দোয়া কামনা করেছেন।

    মেয়র খোকন হঠাৎ কেন কাঁদলেন সেটি নিয়ে চলছে আলোচনা। তবে কি আসন্ন ঢাকা সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া নিয়ে তিনি চিন্তিত? রাজনৈতিক অঙ্গণে আলোচনা মনোনয়ন নিয়ে ‘প্রবল আশাবাদী’ সাঈদ খোকন হঠাৎ কেন কাঁদলেন?


    সাঈদ খোকন বলেছেন, ‘আজকে ঢাকাবাসীর কাছে দোয়া চাই, আমি কখনো কর্তব্যে অবহেলা করিনি। আজকে কঠিন সময়ে দেশের মানুষ যদি আমার পাশে দাঁড়ায়, তাহলে ইনশাল্লাহ আগামী ৫ বছর আমি আপনাদের পাশে থাকবো।’ নিজের বাবাকে হারানোর পর থেকে শেখ হাসিনা তার অভিভাবক এমন মন্তব্যও করেছেন খোকন।

    সাঈদ খোকনের বাবা প্রয়াত মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন ঢাকার প্রথম মেয়র। আর ২০১৫ সালে ঢাকা দক্ষিণের মেয়র নির্বাচিত হন হানিফপুত্র খোকন। এবারের তফসিল অনুযায়ী আগামী ৩০ জানুয়ারি ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচন। আর দক্ষিণের মেয়র পদে এবারও খোকন লড়তে চান।

    মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে নানা কারণে তিনি কিছুটা বিতর্কিত হয়েছেন। সিটি করপোরেশনে স্বজনপ্রীতি, বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে কাজের নিম্নমান, আলোচিত ডেঙ্গু ইস্যুতে মশক নিধনসহ নানা সময়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচিতও হয়েছেন।

    সময়মতো অনেক উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করতেও ব্যর্থ হয়েছেন বলে অভিযোগ। এছাড়া গত পাঁচ বছরে মেয়র সাঈদ খোকনের অপ্রয়োজনীয় বিদেশ গমন ও করপোরেশন পরিচালনার দক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

    ধারণা করা হচ্ছে, এসব কারণে আওয়ামী লীগ তথা দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা তার প্রতি কিছুটা নাখোশ। বিষয়টি বুঝতে পেরে নগরবাসীসহ দলের হাইকমান্ডের সহানুভূতি আদায় করতে মনোনয়ন নিতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছেন ঢাকা দক্ষিণের মেয়র।

    আসন্ন নির্বাচনে মেয়র পদে খোকন ছাড়াও দলের হেভিওয়েটদের মধ্যে ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিম ও ঢাকা-১০ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস মনোনয়ন ফরম তুলে দক্ষিণের নির্বাচনী আমেজকে জমিয়ে তুলেছেন।
    তবে কানাঘুষা আছে, শারীরিকভাবে অসুস্থতার জন্য হাজী সেলিমের সম্ভাবনা কম। যে কারণে শেখ পরিবারের সন্তান ও সংসদ সদস্য শেখ ফজলে নূর তাপসের মনোনয়ন সংগ্রহ চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে সাঈদ খোকনের কপালে।

    নেতাকর্মীদের ধারণা, দলের হাইকমান্ডের সবুজ সংকেত না থাকলে তাপস মনোনয়ন সংগ্রহ করতেন না। তাই এখন তার দলীয় মনোনয়ন পাওয়া অনেকটা সময়ের ব্যাপারমাত্র। বিষয়টি বুঝতে পেরে সাঈদ খোকন মনোনয়ন সংগ্রহ করতে গিয়ে আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি করেছেন।

    যদিও তাপসের মনোনয়ন সংগ্রহ করার পর বুধবার গণমাধ্যমকে সাঈদ খোকন বলেছেন, শক্তিশালী প্রার্থী নির্বাচনে এলে সেটি নির্বাচনের জন্যই ভালো। বিষয়টিকে তিনি ইতিবাচক হিসেবেই দেখেন।

    এদিকে দুই সিটির চূড়ান্ত মনোনয়ন ঘোষণা করা হবে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভার পর। আগামী ২৮ ডিসেম্বর গণভবনে এই সভা অনুষ্ঠিত হবে। শেষ পর্যন্ত কার ভাগ্য খুলবে ওই সভার পরই জানা যাবে।

    Comments

    comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4344