• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    সরকারের সহযোগিতা পেলে গ্রাম-গঞ্জে এটিএম সেবা পৌঁছে দিব: ড. যশোদা জীবন দেবনাথ

    | ১৯ এপ্রিল ২০২০ | ১১:৩৫ অপরাহ্ণ

    সরকারের সহযোগিতা পেলে গ্রাম-গঞ্জে এটিএম সেবা পৌঁছে দিব: ড. যশোদা জীবন দেবনাথ

    এটিএম ফলে বাংলাদেশের প্রত্যন্ত আর্থিক অন্তর্ভুক্তির এজেন্ডা এগিয়ে নেয়ার জন্য সবচেয়ে অপরিহার্য বাহন হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। দেশের বিপুল সংখ্যক মানুষ- বিশেষ করে মহিলা, প্রান্তিক কৃষক, এমএসএমই, নতুন উদ্যোক্তা, অনানুষ্ঠানিক খাত এবং অন্যান্য সামাজিকভাবে বাদ দেয়া গোষ্ঠীগুলো এখনও বেসিক আর্থিক পরিষেবা এবং সঠিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অ্যাক্সেস থেকে অনেক দূরে। তাই এসডিজির লক্ষ্য অর্জনে বিপুল পরিমাণে এটিএম স্থাপনে এই মেশিন আমদানিতে আরোপিত শুল্ক কমিয়ে যৌক্তিক পর্যায়ে করার দরকার বলে মন্তব্য করেছেন টেকনোমিডিয়া লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. যশোদা জীবন দেবনাথ সিআইপি।
    ড. যশোদা জীবন দেবনাথ বলেছেন, আমাদের জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যসমূহ ২০৪১ এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ২০৩০ অর্জনের জন্য ডিজিটাল আর্থিক পরিষেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশের সুদূর প্রান্তে এটিএম পরিসেবাদি পয়েন্ট স্থাপন করে, শিল্প বাণিজ্য ও সামগ্রিক অর্থনীতির অন্তর্ভুক্তিমূলক বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করা খুবই জরুরী। ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সরকারের সহযোগিতা পেলে গ্রাম-গঞ্জে অঞগ সেবা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্য নিয়ে কাজ করতে চাই। বাংলাদেশের শিল্প, বাণিজ্য ও সামগ্রিক অর্থনীতির অন্তর্ভুক্তিমূলক বৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করার জন্য দেশের সুদূর প্রান্তে এটিএম আর্থিক পরিষেবা পয়েন্ট প্রতিষ্ঠা করে এসডিজি ২০৩০ বেঞ্চমার্ক সূচক ৮.১০.১ অর্জনের জন্য অটোমেটেড টেলার মেশিনে (এটিএম) আমদানি শুল্কের যৌক্তিককরণ।
    তার মতে, প্রযুক্তি-সক্ষম প্ল্যাটফর্ম অটোমেটেড টেলার মেশিন (এটিএম), চাহিদা এবং সরবরাহ উভয়ই একত্রিত করে এবং অর্থনীতিকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব প্রবেশ করতে সক্ষম করে যেখানে পণ্য এবং পরিষেবাগুলি ডিজিটাল দক্ষতার সাথে বাড়ানো যায় যা তাদের মান বাড়িয়ে তোলে যা স্মার্টফোন ব্যবহার সহজও করণ, লোক, সম্পদ এবং তথ্য পৌঁছে দেয়। এইভাবে প্রক্রিয়াতে পণ্য এবং পরিষেবা গ্রহণের সম্পূর্ণ নতুন এবং দক্ষ উপায় তৈরি করে।
    তার মতে, এটিএমগুলো ব্যাংকিং হলের বাইরেও সেবা প্রদান করে, চেক প্রতিস্থাপন, গ্রাহকের ব্যক্তিগত উপস্থিতি, ব্যাংকিং সময়ের বিধিনিষেধের বাধ্যবাধকতা এবং কাগজ-ভিত্তিক যাচাইকরণ, বেশ কয়েকটি ব্যাংকিংয়ের কাজ। যেমন কারও একাউন্ট থেকে নগদ উত্তোলন, অ্যাকাউন্টের আমানত, ব্যালেন্স অনুসন্ধান এবং একের কাছ থেকে অন্যের কাছে অর্থ স্থানান্তর – আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দ্বারা জারি করা একটি এটিএম কার্ড এবং ব্যক্তিগত পরিচয় নম্বর ব্যবহার করে। সাম্প্রতিক সংযোজনগুলোর মধ্যে বিল পরিশোধ এবং মোবাইল ব্যাংকিং অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।
    তার পরিসংখ্যান অনুযায়ী, জনসংখ্যার প্রায় ৫০ শতাংশ অবিচ্ছিন্ন থাকার কারণে, নন-ব্যাংক সংস্থাগুলো এটিএম এবং পয়েন্ট-অফ-বিক্রয় (পিওএস) টার্মিনাল স্থাপনের অনুমতি দেয়াই, দূরবর্তী মানুষের সুবিধাগুলি বাড়ানোর লক্ষ্য অর্জনের দিকে সাহসী পদক্ষেপ। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যাংকগুলিতে না গিয়েও তাদের লেনদেন নিষ্পত্তির জন্য। এছাড়াও বাংলাদেশ ব্যাংক জানিয়েছে, ইতিমধ্যে কয়েকটি বেসরকারী সংস্থার বিপুল সংখ্যক এটিএম স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে। তদুপরি, বাংলাদেশ পোস্ট ইলেক্ট্রনিক মানি ট্রান্সফার সার্ভিস (ইএমটিএস) নামে একটি নতুন আর্থিক পরিষেবা চালু করেছে, যা সাধারণত মোবাইল মানি অর্ডার সার্ভিস নামে পরিচিত। বর্তমানে সার্বিকভাবে ২৮১১টি পোষ্ট অফিসগুলি ইএমটিএস সরবরাহ করে যা সমস্ত জেলা, উপজেলা / থানা এবং গুরুত্বপূর্ণ / ব্যস্ত গ্রামীণ পোস্ট অফিসকে অন্তর্ভুক্ত করে। সমস্ত ইলেকট্রনিক মানি ট্রান্সফার সার্ভিসের অবস্থানগুলি (ডাকঘরগুলি) কম্পিউটার, ইন্টারনেট সংযোগ এবং / অথবা মোবাইল ফোনে সজ্জিত যা সার্ভারে ইস্যু বা অর্থ প্রদানের অনুরোধ প্রেরণে ব্যবহৃত হয়।
    তিনি মনে করেন, ভিশন ২০২১ এবং ডিজিটাল বাংলাদেশের আর একটি বিশেষ অর্জন হল ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারগুলি (ইউডিসি) ইউনিয়ন তথ্য পরিষেবা কেন্দ্র বা ইউআইএসসি হিসাবে কাজ করে। স্থানীয় সরকার অফিসে (যেমন, ইউনিয়ন পরিষদ) গ্রামীণ স্থানীয় সরকার ব্যবস্থার সর্বনিম্ন স্তরে অবস্থিত, ইউডিসিগুলি গ্রামীণ নাগরিকদের দোরগোড়ায় সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে। পরিষেবাগুলির মধ্যে অন্যতম মোবাইল আর্থিক পরিষেবা, অর্থ এবং রেমিটেন্স ট্রান্সফার ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। প্রায় ৬ হাজার ডিজিটাল কেন্দ্রগুলি-যা বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের ৪ কিলোমিটারের মধ্যে একটি। এখন সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে দেড় শতাধিক পরিষেবা সরবরাহ করে। যার মধ্যে গড়ে ৬৫ লাখের বেশি কম পরিষেবা পায় এমন নাগরিকদের, যা অনেক টি.সি.ভিতে পওয়া যায় আগের তুলনায় (সময়, ব্যয় এবং পরিদর্শন করার যতটুকু সময় লাগে নাগরিকদের পরিষেবা অ্যাক্সেস করতে)। আশেপাশের মানুষের সুবিধার্থে এটিএম সার্ভিসেস পয়েন্টস (পয়েন্ট-অফ-বিক্রয় (পস) টার্মিনাল) জন্য পুলিশ স্টেশন (প্রায় ৫৩০টি) এবং বাংলাদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অন্যান্য পাবলিক অফিসগুলি এটিএম সার্ভিসেস পয়েন্টগুলির জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত এবং সুরক্ষিত স্থান।
    জরিপ অনুযায়ী, আগামী বছরগুলিতে সারা দেশে এককভাবে ব্যাংকিং খাতের আরো ১৫,৩৭৯টি নতুন এটিএমের চাহিদা রয়েছে। তবে এক্ষেত্রে বিশাল বিনিয়োগ দরকার। যথাযথ বাজেট বরাদ্দ এবং নীতিগত সহায়তা নিশ্চিত করতে হবে। যার মধ্যে স্বয়ংক্রিয় টেলর মেশিন (এটিএম) এইচ এস কোডে ৮৪৭২.৯০.১০, শুল্ক ৫শতাংশ + ভ্যাট ১৫শতাংশ এর বিদ্যমান আমদানি শুল্কের যৌক্তিককরণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এসডিজি বেঞ্চমার্ক সূচক ৮.১০.১ অর্জন করার জন্য আমরা সর্বাধিক বিনীতভাবে আমাদের সরকারকে দয়া করে অনুরোধ করছি।
    ড. যশোদা জীবন দেবনাথের মতে, সাধারণ ও সুরক্ষিত এটিএম স্থাপনের জন্য বাংলাদেশ ডাকঘরগুলি, ব্যাংক, নন-ব্যাংক সত্তা, ২৮১১+ ইলেক্ট্রনিক মানি ট্রান্সফার সার্ভিস (ইএমটিএস) এবং ৫৮৬+ ইউনিয়ন ডিজিটাল কেন্দ্র (ইউডিসি), পুলিশ স্টেশনগুলি (প্রায় ৫৩০টি) এবং অন্যান্য পাবলিক অফিসগুলিকে উৎসাহিত ও সহায়তা করুন। নগদ অর্থ উত্তোলন থেকে নগদ আমানত পর্যন্ত পুরো আর্থিক পরিসীমা সম্পন্ন করার জন্য এটিএম পরিষেবাদি পয়েন্টস (যেমন পয়েন্ট-অফ-বিক্রয় (পিওএস) টার্মিনাল) হতে পারে। দ্বিতীয়ত: তাৎক্ষণিকভাবে অটোমেটেড টেলার মেশিন (এটিএম) এইচএস কোড ৮৪৭২.৯০.১০ অত্যাবশ্যক মূলধনী যন্ত্রপাতি ১% শুল্ক ধরে শ্রেণীবদ্ধ করুন এবং ধারা ১৯ এবং ২০ এর অধীনে আমদানি পর্যায়ে ১৫% ভ্যাটসহ অন্যান্য সকল কর থেকে ছাড় (শুল্ক-শুল্ক থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সাধারণ ক্ষমতা) যা কাস্টমস অ্যাক্ট, ১৯৬৯ এবং এর ধারা ১২৬ ধারা জনগণের স্বার্থে ভ্যাট ও পরিপূরক শুল্ক আইন ), ২০১২ এর ভ্যাট ও পরিপূরক শুল্ক আইন, ২০১২ এর সাধারণ ক্ষমতা, যাতে সমগ্র বাংলাদেশ জুড়ে অর্থনৈতিক ও আর্থিক জীবনরেখার অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধিকে সুগঠিত করা ও জোরদার করা যায়।।এটি আমাদের দ্রুত বিকাশমান অর্থনীতিতে সমগ্র বাংলাদেশ জুড়ে অন্তর্ভুক্তিমূলক বিকাশের উদ্যোগকে তীব্রতর করবে, আরো বেশি উদ্যোগ, আরো বেশি চাকরী, আরো দক্ষ ও সময় উপযোগী উৎপাদন শৃঙ্খলা, ইনক্রিমেন্টাল ইনকাম জেনারেশন এবং জিডিপি প্রবৃদ্ধি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ রাজস্ব হবে যা ক্ষতির চেয়ে অনেক বেশি।


    Facebook Comments


    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4670