• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    প্রযুক্তির অপব্যবহার

    সাইবার অপরাধীরা যেন পার না পায়

    হেলেনা জাহাঙ্গীর | ২৪ এপ্রিল ২০১৭ | ১০:১৪ অপরাহ্ণ

    সাইবার অপরাধীরা যেন পার না পায়

    সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ব্যবহারের দিক থেকে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে দ্রুতগতিতে। এ ব্যাপারে ঢাকার অবস্থান এখন বিশ্বের মধ্যে দ্বিতীয় স্থানে। ঢাকা এবং সন্নিকটের দুই কোটি ২০ লাখ মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করে। এক্ষেত্রে প্রথম স্থানে মেক্সিকো সিটি। এ শহর ও ধারেকাছের এক কোটি ৭০ লাখ লোক ফেসবুকের অ্যাকাউন্টধারী। ফেসবুকের ব্যবহার বৃদ্ধি বাংলাদেশের জন্য নিঃসন্দেহে এক সুখবর। আজকের যুগে তথ্য-প্রযুক্তিতে এগিয়ে থাকা জাতীয় অগ্রগতির অনুষঙ্গ বলে বিবেচিত হয়। ফেসবুক ব্যবহার দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি প্রমাণ করছে ১৬ কোটি মানুষের এই জাতি তথ্য-প্রযুক্তিতে ক্রমান্বয়ে অভ্যস্ত হয়ে উঠছে। এ সুখবরের পাশাপাশি দুঃসংবাদ হলো ফেসবুককেন্দ্রিক সাইবার অপরাধও মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে দ্রুতগতিতে।
    সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইটি সোসাইটি মেয়েদের পাঁচটি হলের প্রায় ২১০০ ছাত্রীর মধ্যে জরিপ চালিয়ে যে তথ্য উদঘাটন করেছে তা আঁতকে ওঠার মতো। এতে বলা হয়েছে, ইন্টারনেট ব্যবহারকারী নারীদের মধ্যে ৭৭ শতাংশই ফেসবুককেন্দ্রিক সাইবার অপরাধের শিকার। পাসওয়ার্ড হ্যাকিংয়ের শিকার ১২ শতাংশ নারী। ইন্টারনেট ব্যবহারকারী নারীদের মধ্যে ৪ শতাংশ ই-মেইল ও এসএমএসে হুমকির সম্মুখীন হন। সাইবার পর্নোগ্রাফির শিকার হন ২ শতাংশ নারী এবং ৫ শতাংশ আইডেন্টিটি থেফটের শিকার।
    সম্প্রতি এক কর্মশালায় তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী মানুষের পাঁচটি মৌলিক চাহিদার পর ইন্টারনেট ব্যবহারকে ষষ্ঠ অধিকার হিসেবে অভিহিত করেছেন। বলেছেন, ইন্টারনেট ব্যবহারে নিজের প্রয়োজনেই সতর্ক থাকতে হবে। পানি পানের সময় যেমন ফুটিয়ে পান করতে হয় তেমন ইন্টারনেট ব্যবহারের ঝুঁকি এড়াতেও সতর্ক থাকতে হবে। এন্টি ভাইরাস ব্যবহার, সিস্টেম আপডেট, শক্তিশালী পাসওয়ার্ড দেওয়া, ডাউনলোডের আগে অ্যাপস ভেরিফাই করা ইত্যাদি ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। সন্দেহ নেই, দুনিয়ার সব দেশে সাইবার অপরাধ বাড়ছে, বাংলাদেশও তা থেকে মুক্ত নয়। এ ধরনের অপরাধে যারা জড়িত তাদের ছাই দিয়ে ধরারও উদ্যোগ নিতে হবে।
    সাইবার বিশ্বে বাংলাদেশ নতুন। এর সম্ভাবনা ও সঙ্কট সম্পর্কে সরকার সম্যক অবগত। সরকার ইতোমধ্যে ন্যাশনাল কাউন্সিল ফর সাইন্স এ্যান্ড টেকনোলজি (এনসিএসটি) গঠন করেছে। এনসিএসটিতে এক্সিকিউটিভ কমিটি গঠন করা হয়েছে যাদের কাজ হলো কাউন্সিল প্রণীত নীতির বাস্তবায়ন। জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নীতিমালায় আইসিটির উন্নয়নকে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়া হয়েছে বিলিয়ন ডলারের সফটওয়্যার রফতানি বাজার ধরার তাগিদে। এছাড়াও সুশাসন নিশ্চিত, আইসিটি সংশ্লিষ্ট নীতি কার্যকর, সফটওয়্যার প্রকল্পের জন্য বিশেষ বরাদ্দ, বিশ্বমানের আইসিটি পেশাদার গড়ে তোলা এবং এ খাতে সমৃদ্ধির জন্য একটি বিশ্বমানের আইসিটি ইনস্টিটিউশন গড়ে তুলতে আইসিটির উন্নয়ন আবশ্যক। স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন কোর্স চালু করা দরকার, যাতে করে আমাদের নতুন প্রজন্ম সাইবার নিরাপত্তা এবং ইনফরমেশন সিকিউরিটি বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করে দেশের আইসিটি অবকাঠামো গড়ে তুলতে সাহায্য করতে পারে।
    দেশে অনলাইন ব্যবহারকারীর সংখ্যা যেমন বাড়ছে, তেমনি জ্যামিতিকহারে বাড়ছে সাইবার অপরাধ। তাই এই সাইবার অপরাধ প্রতিরোধ ও দমন একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠেছে। কোন থানার অধীনস্থ এলাকায় যদি খুনের মতো অপরাধ সংঘটিত হয়, তাহলে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে অপরাধের আলামত সংগ্রহের। তেমনি সাইবার অপরাধের ক্ষেত্রেও কিছু অত্যাবশ্যক ব্যবস্থা নিতে হয়। সেসব ব্যাপারে আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এখনও শতভাগ সক্ষম ও সচেতন নয়। উন্নত বিশ্ব সাইবার অপরাধ নিয়ে যথেষ্ট সতর্ক ও সচেতন। এ ব্যাপারে আমাদের কিছুটা ঘাটতি রয়েছে। সাম্প্রতিককালে দেশে যেসব সাইবার অপরাধ সংঘটিত হয়েছে, তার ভেতরে প্রধান হচ্ছে ব্যক্তিগত হয়রানি। কারও সম্পর্কে মানহানিকর বা আপত্তিকর কথা ও ছবি পোস্ট করা। সামাজিক মাধ্যমের ব্যাপক প্রসারের ফলে এই অপরাধের মাত্রা অনেক বেড়েছে। বিশেষ করে নারী সংক্রান্ত সাইবার অপরাধের মাত্রা বেশি।
    সাইবার অপরাধ রোধে আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। তবে সাইবার অপরাধ আইনের প্রয়োগ সক্ষমতা বৃদ্ধি ও দেশজুড়ে প্রশিক্ষণ চালুর জন্য আরও প্রকল্প গ্রহণের প্রয়োজন রয়েছে। নীতিমালায় আরও যোগ হওয়া দরকার প্রাইভেসি পলিসি, ট্রাস্ট মার্কস এবং অন্যান্য স্বনিয়ন্ত্রক পদক্ষেপ যা পণ্যের মান ও সেবার উন্নতি ঘটাবে এবং ভোক্তাদের আস্থা বৃদ্ধি করবে। সাইবার নিরাপত্তার প্রশ্নে প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই বেশি কাম্য। উদ্বেগের বিষয় হচ্ছে প্রযুক্তিগত ফাঁকফোকর দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছে সাইবার অপরাধীরা। এমনকি অনেক সময় তাদের শনাক্ত করাও সম্ভব হচ্ছে না। তাই সাইবার নিরাপত্তা বাড়াতে জরুরী পদক্ষেপ নিতে হবে। যে কোন মূল্যে নারীর ওপর সাইবার অপরাধ দমন করতে হবে।
    লেখক: চেয়ারম্যান, জয়যাত্রা ফাউেন্ডশন, প্রকাশক ও সম্পাদক, জয়যাত্রা বিডি নিউজ


    Facebook Comments Box


    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757