• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    সেই সাধনার করেছেন ৩ বিয়ে, বেরিয়ে আসছে বিস্ফোরক তথ্য

    ডেস্ক | ২৬ আগস্ট ২০১৯ | ১:৫২ অপরাহ্ণ

    সেই সাধনার করেছেন ৩ বিয়ে, বেরিয়ে আসছে বিস্ফোরক তথ্য

    জামালপুরের জেলা প্রশাসকের সাথে অনৈতিক ভিডিও প্রকাশের পর থেকে গণমাধ্যমের শিরোনাম হয় অফিস সহকারী সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা। সংবাদের তথ্যে একের পর এক বেরিয়ে আসতে থাকে তার অপকর্মের কথা। অপ্রাপ্ত বয়সেই বিয়ে হয় সাধনার। স্বামী একটি বেসরকারি কোম্পানীতে চাকরি করতেন। তাদের সংসারে পূর্ণ নামের এক পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। বিয়ের আগে থেকেই সাধনা নানা অনৈতিক কাজে লিপ্ত ছিলেন বলে অভিযোগ তুলেন এলাকাবাসী। আর এই কারণে স্বামীর সঙ্গে তার বনিবনা ছিলনা। হঠাৎ করে ২০০৯ সালে স্বামী ফরহাদের আকস্মিক মৃত্যু হয়। তার মৃত্যু নিয়ে তখন নানান কানাঘুষা হয়েছে।


    শুধু এখানেই শেষ নয়, স্বামীর মৃত্যুর পর আরও বেশি বেপরোয়া হয়ে উঠেন এই সাধনা। প্রথম স্বামীর মৃত্যুর পর এক পুলিশ সদস্যের সাথে বিয়েতে বসেন। ভাগ্যক্রমে বেশিদিন সংসার করা হয়নি তার। কয়েক মাস যেতেই তালাক হয়ে যায় তাদের। এরপর কিছুদিন একা থাকার পর এলাকার এক যুবকের সাথে প্রেমের সম্পর্ক করে বিয়ে করেন আবারো। ভাগ্য এবারও সহায় হলো না তার। এই স্বামীর সাথেও হয়ে যায় ছাড়াছাড়ি। এরপর সাধনা ২০১৮ সালে উন্নয়ন মেলায় হস্তশিল্পের স্টল বরাদ্ধ নেয়ার জন্য জেলা প্রশাসক আহমেদ কবিরের সাথে দেখা করেন। তার রূপে মুগ্ধ হয়ে বিনামূল্যে স্টল বরাদ্দ দেন জেলা প্রশাসক। উন্নয়ন মেলা চলাকালীন তাদের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে উঠে।


    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শর্তে এক জনপ্রতিনিধি বলেন, সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা একটি বহুগামী নারী। যার বিরুদ্ধে অনেক অনৈতিক কাজের অভিযোগ আছে এলাকায়। নির্বাচনের সুবাদে আমার সাথে পরিচয় হয়েছিল তার। এরপর থেকে আমার কাছে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন মাধ্যমে অসামাজিক কাজের অভিযোগ আসতে থাকে। এমনকি এই সাধনা, ২০০৯ সালে স্বামীর মৃত্যুর পর আরও বেশি বেপরোয়া হয়ে উঠেন এই সাধনা। প্রথম স্বামীর মৃত্যুর পর এক পুলিশ সদস্যের সাথে বিয়েতে বসেন। কয়েক মাস যেতেই তালাক হয়ে যায় তাদের। এরপর এলাকার এক যুবকের সাথে প্রেমের সম্পর্ক করে বিয়ে করেন আবারো। এই স্বামীর সাথেও হয়ে যায় ছাড়াছাড়ি।

    তিনি আরও বলেন, আজ (২৬ আগস্ট) তিনি অফিসে হাজিরা দিয়েছেন। তিনি বর্তমানে এই এলাকায় বসবাস করছেন। এলাকার মানুষ তার এই অপকর্মের জন্য অতিষ্ঠ হয়ে গেছে। এরপর তো জেলা প্রশাসকের সাথে এই ঘটনায় সারাদেশ তোলপাড়। তার সম্পর্কে বলতে গেলে আমার সময় নষ্ট হবে শুধু।

    নাম প্রকাশে শর্তে এলাকার এক ব্যবসায়ী বলেন, এই মহিলাকে (সাধনা) আমরা অনেক ধরেই দেখছি। উল্টা-পাল্টা চলাফেরা করে সে। বিভিন্ন সময় এলাকার বখাটে ছেলেদের সাথে মিশে। বাবা-মায়ের সাথে এই এলাকায় থাকে। আমরা শুনেছি সে নাকি পালিত মেয়ে। তাহলে তার বাবা মায়ের আসল পরিচয় কি? এই ধরনের মেয়েদের শাস্তি হওয়া উচিত।

    এর আগে, মাদারগঞ্জ উপজেলার ৪নং বালিজুড়ী চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক বলেন, গত দুই দিন ধরে আমার কাছে বিভিন্ন মহল থেকে জানতে চাওয়া হচ্ছে সাধনা সম্পর্কে। আমার ইউনিয়নের ভোটার তিনি নন। আমি যতটুকু জানি, ১৯৯০ সালের বন্যার সময় খাইরুল ইসলাম নামের এক লোক এই মেয়েকে নিয়ে শুকনগরী গ্রামে আসেন এবং বেশ কয়েক বছর বসবাস করেন। খাইরুলের সংসারে কোন সন্তান জন্ম না নেয়ায় এই মেয়েকে কারো কাছ থেকে দত্তক নেয়। মেয়েটার বিয়ে হয়েছিল। স্বামী মারা গেছে। একটি সন্তানও আছে তার।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4673