• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    স্কুলশিক্ষক থেকে ‘মোবাইল বাবা’!

    অনলাইন ডেস্ক | ১৩ আগস্ট ২০১৭ | ৯:৩৪ পূর্বাহ্ণ

    স্কুলশিক্ষক থেকে ‘মোবাইল বাবা’!

    শখের মোবাইল ফোনের মজুত ভাণ্ডারে প্রায় ৩০০ বন্ধুর নম্বর। কিন্তু, কোন একজনকে কল করতে গেলেই, তার নম্বর পাওয়া যাচ্ছে না। কন্টাক্ট লিস্টে দেখাচ্ছে মাত্র ৭০টি নম্বর মজুত আছে। আবার কখনও কখনও রাতভর মোবাইল চার্জ হয়েছে, অথচ ঘুম থেকে উঠে দেখা গেল চার্জই হয়নি। চার্জবার সেই এক দাগ দেখাচ্ছে। নামি-অনামি অনেক মোবাইল ব্যবহারকারীদের এই ধরণের সমস্যার মুখেই পড়তে হয়৷ আর সেই ভুক্তভোগী মুঠোফোন ব্যবহারকারীদের হাজারো সমস্যা হাসি মুখে সমাধান করে দিচ্ছেন ‘মোবাইল চিকিৎসক’। মুখে মুখে সেই চিকিৎসকের নাম বদলে হয়ে গেছে ‘মোবাইল বাবা’৷


    নাম সূর্যসারথি সরকার। ভারতের উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর পুর-শহরের রামকৃষ্ণপল্লীর বাসিন্দা৷ পেশায় প্রাথমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক৷ কিন্তু, এই চেনা পেশা-পরিচয়ের বাইরে এখন তাঁর আরও একটা বিষয়ে ব্যাপক পরিচিতি দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়েছে৷ যার পোশাকি নাম হয়েছে ‘মোবাইল বাবা’৷ হ্যাঁ! শুনতে একটু অবাক লাগলেও, ইসলামপুর শহর ছাড়াও আশপাশের মানুষের কাছে তিনি এখন এই নামেই পরিচিত৷ এমন কী, বিহার রাজ্যের কিষণগঞ্জেও তাঁর মোবাইল বাবা নামটা পৌঁছে গিয়েছে৷ কিন্তু, কেন দিনে দিনে এই একটা অদ্ভুত নাম হয়ে গেল রামকৃষ্ণপল্লীর এক সময়ের চকলেট বয় সূর্যসারথির?

    ajkerograbani.com

    সবার হাতে হাতে এখন নামি-অনামি কোম্পানির স্মার্টফোন৷ এমন অনেকেই আছে যে, মোবাইল ফোনের বহু ফিচারের কথা নিজেও জানে না৷ সেটিংসের কোথায় কীভাবে কাজ করে, তাও অনেকের কাছে অজানা৷ তাই প্রায় তাদের কোন কোনও সমস্যায় পড়তে হয়৷ ছোটখাট নানান সমস্যাতে পড়তেই হয়৷ আবার এমন কিছু সমস্যা আছে, যার কারণ বহু ক্ষেত্রেই মোবাইল সংস্থার সার্ভিস সেন্টার কিংবা মোবাইল মেকানিকের কাছে দৌঁড়তে হয়৷ কিন্তু, আদতে মোবাইলে তেমন কোন সমস্যাই ছিল না৷ অজ্ঞতার জন্য বহুক্ষেত্রেই উপভোক্তার পকেট থেকে কাড়ি কাড়ি টাকা কেটে নেন সার্ভিস সেন্টার এবং মেকানিকরা৷ আর এই সমস্ত সমস্যায় হাসিমুখে সমাধান করে দিচ্ছেন সূর্যসারথি৷ যার কারণে তিনি এখন সবার কাছে মোবাইল বাবা নামেই পরিচিত হয়েছেন৷

    এক একান্ত সাক্ষাৎকারে ইসলামপুরের এই শিক্ষক জানালেন, কলকাতার বাইরে এই রাজ্যে মূলত ২০০৩ নাগাদ মোবাইলের ব্যবহার ছড়িয়ে পড়ে৷ তখন থেকেই তিনি এই ফ্রি সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছেন৷ আসলে বাজারে নতুন মোবাইল এলেই তিনি তা কিনতেন৷ শুধু জানার আগ্রহে সমস্ত সেটিংস ঘেঁটে দেখতেন৷ম্যানুয়ালগুলো মন দিয়ে পড়তেন৷ এই ভাবেই মোবাইলের সফটওয়ার সম্পর্কে প্রচুর তথ্য মগজাস্ত করেছেন৷ প্রথমদিকে বন্ধু-বান্ধবরা কোন সমস্যায় পড়লে, তার সমাধান করেছেন৷ কিন্তু, দিনে দিনে মুখে মুখে সেই কথা আশপাশে প্রচুর ছড়িয়েছে৷ তাই দিনে তিন-চারজন তার কাছে হাজির হচ্ছেন তাদের বিগড়ে যাওয়া মোবাইল ঠিক করে দেওয়ার জন্য৷

    তিনি আরও জানালেন, প্রায় প্রতিদিন সন্ধ্যে হলেই ইসলামপুর বাস টার্মিনাস আড্ডার আসরে যান৷ মোবাইলের নানা সমস্যা নিয়ে সেখানেই সবাই হাজির হয়ে যান৷ আবার কেউ কেউ বাড়িতেও হানা দেন৷ তবে, তাতে বিরক্তি প্রকাশ না করেই হাসিমুখে সবার সমস্যা সমাধান করে দেন তিনি৷ মজার কথা, ডাক্তারদের মতো তিনি মোবাইলের সমস্যা সমাধানের জন্য বাড়িতেও কল পান৷ তাতেও তিনি কারও কারও বাড়িতে গিয়ে হাজির হন৷ না, এই মুঠোফোনের সমস্যা হাসিমুখে সমাধান করে দেওয়ার জন্য কোন চার্জও তিনি নেন না৷ শুধু কি তাই, অনেক ক্ষেত্রে মোবাইল মেকানিকরাও ব্যর্থ হলে সূর্যের কাছেই পাঠিয়ে দেয়৷ বিষয়টা বেশ মজার ছলেই এক দশক ধরে চালিয়ে আসছেন ইসলামপুরের মোবাইল বাবা৷

    সূর্যসারথি বললেন, ‘মূলত সফটওয়ার সংক্রান্ত সমস্যা চোখের পলকে সামলে দিই৷ আসলে মোবাইল ফোন কিনে অনেকেই ম্যানুয়ালটা মন দিয়ে পড়ে দেখেন না৷ আবার কোন কোন ক্ষেত্রে সফটওয়ার আপডেট না করার জন্যও সমস্যা হয়’৷ তা করে দিলেই সমস্যা মিটে যায়৷ তবে সবচেয়ে বেশি সমস্যা আসে জিওনি মোবাইলের৷ ধরুন মোবাইল ৩০০ নম্বর-নাম রয়েছে৷ অথচ লিস্টে দেখা যাচ্ছে ৭০টি নাম-নম্বর৷ বেশি ভাগই সমস্যার মধ্যে রয়েছে ব্যাটারির চার্জের৷ রাতভর ব্যাটারি চার্জ দেওয়ার পরও দেখাচ্ছে কোন চার্জ নেই৷ এসবই সফটওয়ারের জন্য৷ কোন কোন মোবাইলে সেটে আবার দেখা যাচ্ছে, দুটো সিম ভরা৷ কিন্তু, ডিসপ্লেতে ক্রশ দেখাচ্ছে৷

    জিও গ্রাহকদের অনেকের দেখা যাচ্ছে ভোলাইট শো করছে না৷ কিন্তু, মোবাইলের সফটওয়ারটি আপডেট করলেই দিব্বি কাজ করছে৷ তিনি বললেন, সবই খুব ছোটখাট বিষয়৷ সেই সবই সমাধানের জন্যই সবাই আমার কাছে ছুটে আসে, ভরসা করে৷ এসব করে দিতে সত্যি খুব ভালোই লাগে৷ অনেকেই এর জন্য চার্জ দিতে চান৷ কিন্তু, কারও কাছে কোনদিন কিছু নিইনি৷ সারাই মোবাইল হাতে পাওয়ার পর সবার হাসিটাই সবচেয়ে বড় পাওনা মোবাইল বাবার।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4755