• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই বেনাপোল ইমিগ্রেশনে

    | ২৩ এপ্রিল ২০২১ | ৯:০৬ অপরাহ্ণ

    স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই বেনাপোল ইমিগ্রেশনে

    করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে পাসপোর্ট যাত্রী, পুলিশ ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে নেই স্বাস্থ্যবিধি। পাসপোর্টের আনুষ্ঠানিকতা সারতে সামাজিক দূরত্ব ছাড়াই পাসপোর্ট যাত্রীরা অবস্থান করছেন ভবনটিতে। এতে পরস্পরের মধ্যে ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি দিন দিন বাড়লেও নজর নেই কর্তৃপক্ষের। 


    তবে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ বলছেন, সংকীর্ণ ভবনে যাত্রীর চাপ হলে এমন সমস্যা তৈরি হচ্ছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার জানানো হয়েছে।

    ajkerograbani.com

    ইমিগ্রেশন এলাকায় ঘুরে জানা যায়, বাংলাদেশের মতো প্রতিবেশী দেশ ভারতেও দিন দিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুহার। শুধু করোনা নয়, ইতিমধ্যে ভারতের অন্ধ প্রদেশের অজ্ঞাত একটি ভাইরাসের বিষয়েও সতর্কতা ও নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে।

    বর্তমানে ভারত ভ্রমণকারীদের মধ্যেও বেড়েছে করোনা আক্রান্ত। প্রতিদিন কম বেশি করোনা আক্রান্ত হয়ে ভারত থেকে ফিরছেন যাত্রীরা। ভারত ভ্রমণে করোনা আক্রান্তের ঝুঁকি বাড়ার বিষয়টিও সম্প্রতি মার্কিন স্বাস্থ্য সংস্থা রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (সিডিসি) সতর্ক করেছেন।

    তারা বলছেন, করোনার ডোজ শেষ না করে ভারত ভ্রমণ না করাই উত্তম। এছাড়া সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মানার ওপরও জোর দেন সিডিসি। তবে চিকিৎসা বাণিজ্য স্বাভাবিক রাখতে ভারত-বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্তে শর্ত সাপেক্ষে বেনাপোল ও পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন দিয়ে সচল রয়েছে দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক, মেডিকেল, বিজনেস ও স্টুডেন্ট  ভিসায় যাতায়াত। তবে যে ভবনটিতে প্রতিদিন শত শত দেশ-বিদেশি মানুষের জনসমাগম সেই ঝুঁকিপূর্ণ ইমিগ্রেশন ভবনটিতে নানা অনিয়মে প্রথম থেকেই বিঘ্নিত হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি।

    সংকীর্ণ জায়গার কারণে ইমিগ্রেশনে যাত্রীরা একে অপরের শরীরের সাথে মিশে দাঁড়িয়ে পাসপোর্টের আনুষ্ঠানিকতা সারতে হচ্ছে। ইমিগ্রেশন পুলিশ,কাস্টমস ও স্বাস্থ্য-কর্মীরা শুধু মাস্ক পরেই অফিস করছেন। হ্যান্ডগ্লাভস ও পিপি ব্যবহারে কারো কোনো আগ্রহ নেই। এতে সবার মধ্যে আক্রান্ত ও সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বাড়ছে।

    বেনাপোল ইমিগ্রেশন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব জানান, ইমিগ্রেশন ভবনে এসে সবার ভারত প্রবেশের তাড়া থাকে। যাত্রীদের সংখ্যা বেশি হলে স্বাস্থ্যবিধি রাখা কঠিন হয়ে পড়ে। তবে ইমিগ্রেশন ভবনের জায়গা বাড়ানোর জন্য ইতিমধ্যে বিভিন্ন প্রশাসনিক বৈঠকে আহবান জানানো হয়েছে।

    বেনাপোল ইমিগ্রেশন স্বাস্থ্য বিভাগের মেডিকেল অফিসার হাবিবুর রহমান সহকর্মীদের নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে অফিস করার বিষয়টি জানতে চাইলে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

    বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস রাজস্ব কর্মকর্তা শারমিন জানান, সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অফিস করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কেউ যদি অনিয়ম করেন সতর্ক করা হবে।

    উল্লেখ্য, চলতি মাসের ২২ এপ্রিল পর্যন্ত ভারত থেকে ফিরেছে ১১৫৩২ জন বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী। এর মধ্যে ভারতে গিয়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে ফিরেছেন ২২ জন। আরটিপিসিআরের করোনা নেগেটিভ সনদ না থাকা ভারত ফেরত যাত্রীদের শরীরের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১২২ জনের। এদের মধ্যে করোনা পজিটিভ হয়েছে ৩ জন। দায়িত্বপালনকালে গত বছরে বেনাপোল ইমিগ্রেশনের তিন পুলিশ ও ৩ স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছিল।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757