• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    হানির ম্যাসাজ ছাড়া ঘুম আসছে না রাম-রহিমের

    অনলাইন ডেস্ক | ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ৬:৫৬ অপরাহ্ণ

    হানির ম্যাসাজ ছাড়া ঘুম আসছে না রাম-রহিমের

    ‘হানিকে আমার সঙ্গে রাতে থাকতে দিন। ও আমায় ম্যাসাজ করে দেয়। ওকে ছাড়া ঘুমাতে পারছি না। ঘুম আসছেই না।’- আবার এমনতর আবেদন জানালেন ধর্ষণের অভিযোগে দণ্ড পাওয়া ভারতের স্বঘোষিত ধর্মগুরু ‘ধর্ষক বাবা’ রাম-রহিম ওরফে গুরমিত সিং।


    হানিপ্রীত বাবা রাম রহিমের পালিত মেয়ে। এর আগে এই হানিপ্রীতের সঙ্গে বাবার কেচ্ছাকাহিনী নিয়ে কম আলোচনা হয়নি। আগেও ধর্ষক বাবার কারা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন ছিল, তিনি জেলে থাকবেন, তবে সঙ্গে থাকবেন পালিত মেয়ে হানি। এবার তিনি সরাসরি সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতে আবেদন করে বসলেন।

    ajkerograbani.com

    এদিকে আইনজীবীর মাধ্যমে একই আবেদন করেছেন হানিপ্রীতও। তিনিও তাঁর পালক বাবার সঙ্গে থাকতে চান। জেলে হলে তাও সই।

    এর আগে হানিপ্রীতের সাবেক স্বামী বিশ্বাস গুপ্ত রাম রহিমের সঙ্গে তাঁর স্ত্রীর অবৈধ সম্পর্কের অভিযোগ করেছিলেন। বিশ্বাস গুপ্ত বাবা রাম রহিমের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে বলেন, হানিপ্রীতকে তাঁর থেকে আলাদা করে নিয়ে নিজের কাছে রেখে দিয়েছিলেন বাবা রাম রহিম।

    ২০১১ সালে নিজের স্ত্রী হানিপ্রীতকে রাম রহিমের ডেরা থেকে বের করে আনতে হাইকোর্টের দ্বারস্থও হয়েছিলেন বিশ্বাস গুপ্ত। কিন্তু স্বামীর কাছে না গিয়ে রাম রহিমের কাছেই থেকে গিয়েছিলেন হানিপ্রীত।

    হানিপ্রীতের আসল নাম প্রিয়াঙ্কা। হরিয়ানার ফতেহাবাদের মেয়ে তিনি। এই প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে নিজের এক ভক্ত এই বিশ্বাস গুপ্তর বিয়ে দিয়েছিলেন বাবা রাম রহিম। তারপর মেয়ে হিসেবে তাঁকে দত্তক নেন তিনি। ২০০৯ সালের ডিসেম্বর মাসে এক জমকালো পার্টির আয়োজন করে প্রিয়াঙ্কাকে দত্তক মেয়ে হিসেবে ঘোষণা দেন বাবা রাম রহিম। তারপরই প্রিয়াঙ্কার নাম দেন হানিপ্রীত ইনসান।

    বিশ্বাস গুপ্ত দাবি করেন, হানিপ্রীতকে বিয়ে করার সুবাদে বাবা রাম রহিমের ডেরাতে স্ত্রীর বদান্যে বাড়তি সুবিধাও পেতেন তিনি। কিন্তু ২০১১ সালের মে মাসে এক সন্ধ্যেবেলা বাবা রাম রহিমের ওপর থেকে সমস্ত বিশ্বাস উড়ে যায় তাঁর। কারণ, ওই দিন ডেরার মধ্যে বাবা রাম রহিমের খোলা দরজার ফাঁক দিয়ে তিনি দেখতে পান নিজের স্ত্রী হানিপ্রীত বাবা রাম রহিমের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় রয়েছে।

    এই ঘটনার পরেই হানিপ্রীত ডিভোর্স দেন তাঁর স্বামী বিশ্বাস গুপ্তকে। ওই দিন নিজের স্ত্রীর সঙ্গে বাবা রাম রহিমের আপত্তিকর দৃশ্য দেখে ফেলার পর সত্যি ঘটনা কাউকে জানালে চরম পরিণতি হবে বলেও বিশ্বাস গুপ্তকে হুমকি দিয়েছিলেন বাবা রাম রহিম। এরপর পরিবারের বাকি সদস্যদের নিয়ে রাম রহিমের ডেরা সাচ্চা সৌদা ত্যাগ করেন বিশ্বাস গুপ্ত। কিন্তু তারপরও নানাভাবে রাম রহিমের লোকজন তাঁর ওপর হেনস্তা চালিয়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

    উল্লেখ্য, বাবা রাম রহিমের সঙ্গে সর্বক্ষণই দেখা যেত এই হানিপ্রীতকে। ইন্টারনেট সার্চ করেও দেখা গেছে, ধর্ষক বাবার সঙ্গে হানিপ্রীতের রয়েছে অনেক ছবি। রয়েছে ভিডিও। যেখানে আবার বাবা রাম রহিমকে পাপা বলে ডাকতে দেখা গিয়েছে হানিপ্রীতকে। তবে পাপা ডাকলেও রাম রহিমের সঙ্গে হাসি-ঠাট্টা থেকে বন্ধুর ভূমিকাতেও দেখা গেছে হানিপ্রীতকে। এই হানিপ্রীতকেই বাবা রাম রহিম জেলে যাওয়ার আগে পর্যন্ত ছায়াসঙ্গী হিসেবে দেখা গেছে। ভক্তদের দাবি, এই হানিপ্রীতকেই সবচেয়ে বেশি বিশ্বাস করতেন বাবা রাম রহিম।

    এদিকে হানিপ্রীত ইনসানের বিরুদ্ধেও অভিযোগ অনেক। সরকার এরই মধ্যে তাঁর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ এনেছে। রাম রহিমকে নিয়ে আদালত থেকে পালানোর ছক কষার অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে এ অভিযোগ আনা হয়।

    পুলিশের সূত্র জানায়, ২৫ আগস্ট আদালত রাম রহিমকে ২০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়ার পর থেকেই নিখোঁজ তাঁর দত্তক মেয়ে হানিপ্রীত সিং ইনসান। হানিপ্রীতের খোঁজ না পেয়ে শেষ পর্যন্ত ‘লুক আউট’ নোটিশ জারি করে হরিয়ানা পুলিশ। হানিপ্রীতের পাশাপাশি রাম রহিমের ডেরা সাচ্চা সৌদার তিন ভক্তের বিরুদ্ধেও জারি করা হয়েছে ‘লুক আউট’ নোটিশ।

    অবশেষে গ্রেফতার করা হল ধর্ষক বাবাজি রাম রহিম সিংয়ের পালিতা কন্যা হানিপ্রীতকে। মুম্বাই থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে খবর দিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া। তবে এ বিষয়ে হরিয়ানা পুলিশ এখনও কিছু নিশ্চিত করে জানায়নি বলে খবরে প্রকাশ।
    যদি হানিপ্রীত গ্রেফতারও হয় তাকে কি বাবা রাম রহিমের সঙ্গে রাখা হবে নাকি আলাদা কক্ষে রাখা হবে তাও জানা যায়নি।

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4755