• শিরোনাম

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    ১৬ মাসের কালিমা পাঁচ দিনেই মুছে ফেললেন স্মিথ

    | ০৫ আগস্ট ২০১৯ | ১০:০৬ অপরাহ্ণ

    ১৬ মাসের কালিমা পাঁচ দিনেই মুছে ফেললেন স্মিথ

    মার্চ ২০১৮, কেপটাউন টেস্ট। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচে স্মরণকালের সবচেয়ে নেক্কারজনক বল টেম্পারিং ঘটনার জন্ম দেয় অস্ট্রেলিয়া। যে কারণে এক বছরের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। ক্যামেরন ব্যানক্রফটের শাস্তি হয় ৯ মাসের।

    আগস্ট ২০১৯, এজবাস্টন টেস্ট। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অ্যাশেজ সিরিজের প্রথম ম্যাচে ২৫১ রানের বিশাল জয় পেল অস্ট্রেলিয়া। প্রায় ১৮ বছর পর এজবাস্টনে জয়ের মুখ দেখে তারা। আর এ জয়ের নায়ক ১৬ মাস আগে নিষিদ্ধ হওয়া সেই স্মিথ।

    দীর্ঘ ১৮ বছর পর এজবাস্টনে অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট জেতার ম্যাচে স্মিথের অবদান প্রথম ইনিংসে ১৪৪ এবং দ্বিতীয় ইনিংসে ১৪২ রান। দুই ইনিংসেই হাল ধরেছেন দক্ষ নাবিকের ন্যায়। দলকে নিয়ে গেছেন নিরাপদ স্থানে। প্রায় ১৬ মাস পর টেস্ট খেলতে নেমে জিতে নিয়েছেন ম্যাচসেরার পুরষ্কার।

    অথচ ম্যাচের শুরু থেকে নিজের দ্বিতীয় ইনিংসে আউট হওয়া পর্যন্ত দর্শকদের ক্রমাগত দুয়ো শুনতে হয়েছে তাকে। ইংল্যান্ডের বিখ্যাত বার্মি আর্মি সমর্থক গোষ্ঠি স্মিথ নামা থেকেই শুরু করেন দুয়ো দেয়া, দেখাতে থাকেন কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিংয়ে ব্যবহৃত স্যান্ডপেপার।

    এসব সামলে প্রথম ইনিংসে পঞ্চাশ পেরোন স্মিথ। তবু গ্যালারি থেকে পাননি সমর্থন। চলতে থাকা টানা দুয়ো। দল পড়ে যায় বিপর্যয়ে, ১২২ রানে পড়ে যায় ৮ উইকেট। শেষের দুই ব্যাটসম্যানকে নিয়ে দলকে নিয়ে যান ২৮৪ রানে, নিজে খেলেন ১৪৪ রানের ইনিংস। তখনও গ্যালারি থেকে শোনা যাচ্ছিলো দুয়োর শব্দ।

    এই ১৪৪ রানের ইনিংস খেলার মাধ্যমে ১১৮ ইনিংসে ক্যারিয়ারের ২৪তম সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ইতিহাসের দ্বিতীয় দ্রুততম ব্যাটসম্যান বনে যান স্মিথ, পেছনে ফেলে দেন ১২৩ ইনিংসে ২৪তম সেঞ্চুরি করা বিরাট কোহলিকে। মাত্র ৬৬ ইনিংসে ২৪তম সেঞ্চুরি করে যথারীতি এ তালিকার শীর্ষে স্যার ডোনাল্ড ব্র্যাডম্যান।

    ক্যারিয়ারের ২৪তম হলেও অ্যাশেজে স্মিথের এটি ছিলো নবম সেঞ্চুরি। মর্যাদার এ সিরিজে তার চেয়ে বেশি সেঞ্চুরি রয়েছে কেবল স্যার ডন ব্র্যাডম্যান (১৯), স্যার জ্যাক হবস (১২) এবং স্টিভ ওয়াহর (১০)। সমান ৯টি করে সেঞ্চুরি নিয়ে এ তালিকার চতুর্থ স্থানে ওয়ালি হ্যামন্ড এবং ডেভিড গাওয়ারের সঙ্গী হন স্মিথ।

    পরে দ্বিতীয় ইনিংসে হ্যামন্ড-গাওয়ারকেও ছাড়িয়ে যান অসিদের সাবেক অধিনায়ক। এবার তিনি নামেন দলের অবস্থান ২ উইকেটে যখন ২৭ রান, তখন। চলতে থাকে দর্শকদের দুয়ো। এসবকে থোরাই কেয়ার করলেন স্মিথ। খেললেন ১৪২ রানের ইনিংস।

    ২০০২ সালে সেই ম্যাথু হেইডেনের পর অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে অ্যাশেজে দুই ইনিংসেই সেঞ্চুরি, অ্যাশেজের ইতিহাসে ডনের পরে সবচেয়ে কম ইনিংসে ১০ সেঞ্চুরি। তার সামনে এখন শুধু রয়েছেন স্যার ডন (১৯) এবং জ্যাক হবস (১২)। পাশে রয়েছেন স্টিভ ওয়াহ (১০)।

    এত এত কীর্তির ম্যাচে স্মিথের অর্জনের তালিকায় যুক্ত হয়েছে ভিন্ন একটি জিনিসও। দ্বিতীয় ইনিংসে তিনি যখন আউট হয়ে সাজঘরে ফিরছেন, তখন ঠায় দাঁড়িয়ে গ্যালারির সকলে। হাততালি দিয়ে অভিনন্দন জানান স্মিথকে।

    কেউ কেউ দুয়ো দেয়ার চেষ্টা করলেও হাততালির শব্দে তা মিলিয়ে যায় বাতাসেই। স্মিথ ব্যাট তুলে হেলমেট তুলে প্রচণ্ড করতালির মধ্যে ড্রেসিংরুমে ফিরছেন, ফেরার পথে সিকিউরিটি বা গ্রাউন্ডসম্যানদের একজন পিঠ চাপড়ে যথাযথ সম্মান জানিয়ে দেন স্মিথকে।

    ১৬ মাস আগের কীর্তির জন্য যে স্মিথকে টানা দুয়ো দিতে থাকে ইংলিশ সমর্থকরা, সেই তারাই স্মিথের ব্যাটের জাদুতে বশীভূত হয়ে পাঁচদিনের মধ্যেই বাধ্য হন হাততালি দিতে। নিজের ওপর ১৬ মাস ধরে জমে থাকা কালিমা যেন পাঁচদিনেই মুছে ফেললেন স্টিভেন পিটার দেবেরক্স স্মিথ।

    Comments

    comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী