• শিরোনাম



    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    ২০ হাজার টাকা জরিমানা দিয়ে ও ধুম-ধারাক্কার সাথে সম্পন্ন হল বাল্য বিয়ে

    অনলাইন ডেস্ক | ০৯ মে ২০১৭ | ৮:০৮ অপরাহ্ণ

    ২০ হাজার টাকা জরিমানা দিয়ে ও ধুম-ধারাক্কার সাথে  সম্পন্ন হল বাল্য বিয়ে

    গতকাল সোমবার দিনের বেলায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পণ্ড হয়ে যাওয়া সেই বাল্য বিয়ে রাতেই অত্যন্ত ধুমধামের সাথে সম্পন্ন হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতে বিশ হাজার টাকা জরিমানাও আদায় করেন কিশোরী কন্যার মামা। এমনকি কন্যার বয়স ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত তাকে বিয়ে না দেয়ার মুচলেকাও প্রদান করেন তিনি। এতসবের পরেও মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে রাতে বিয়ের অনুষ্ঠান পরিবর্তন করে বরের ঘরে মাইক বাজিয়ে ধুম-ধারাক্কার সাথে উৎসবমূখর পরিবেশে সম্পন্ন হয় বাল্য বিয়ের অনুষ্ঠানটি।


    সারারাত ধরে বিয়ে বাড়ির গানবাজনা আর হৈ-হুল্লুড়ে গ্রামের অতিষ্ট লোকজন সংবাদ পাঠায় প্রশাসনে। আজ মঙ্গলবার সকালে এ খবর পেয়ে কক্সবাজারের রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শাহজাহান আলী পুলিশ নিয়ে ছুটে যান দুর্গম গ্রাম গোয়ালিয়া পালং। রাস্তায় গাড়ি থামিয়ে মেঠো পথ ধরে সেই আলোচিত বিয়ে বাড়িতে পুলিশ যেতে দেখে নববধূকে নিয়ে বর পালিয়ে যায়। এমনকি বিয়ে বাড়ির এক বৃদ্ধা (বরের মা) ছাড়া অন্যান্য সবাই যে যেদিকে পারে গা ঢাকা দেয়।

    ajkerograbani.com

    অভিযান শেষে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শাহজাহান আলী কালের কণ্ঠকে জানান, রামু উপজেলা সদর থেকে অনেক দুরের দুর্গম এলাকার গ্রামের গোপন বিয়ে বাড়িটির সব বাসিন্দারাই পালিয়ে গেছেন। ঘরে যেহেতু বৃদ্ধ গৃহকত্রীকে পাওয়া গেছে তাকে আটক করা ছাড়া আমাদের আর কোন গত্যন্তর ছিলনা। অপরাধ স্বীকার করে জরিমানা আদায় এবং মুচলেকা প্রদানকারী ব্যক্তি ও বরসহ এই বাল্য বিয়ের ঘটনায় যারাই জড়িত রয়েছেন তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধেই মামলা করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

    প্রসঙ্গত গতকাল সোমবারের দৈনিক কালের কণ্ঠের অনলাইনে ‘বাল্যবিয়ে পণ্ড-আয়োজকের ২০ হাজার টাকা জরিমানা’ শীর্ষক এ সংবাদটি প্রকাশিত হয়। নানার বাড়ি এনে গোপণে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী কিশোরী কন্যা বাজেকাতুল জামানের বিয়ে দেয়া হচ্ছিল। এ খবর পেয়ে সোমবার দুপুরে গোপন বিয়ে বাড়িতে পুলিশ নিয়ে হাজির হন কক্সবাজারের রামু উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) প্রকৌশলী মো. নিকারুজ্জামান। এ সময় ভাতের প্লেট ফেলে যে যেদিকে পারেন পালিয়ে যান অতিথিরা। পণ্ড হয়ে যায় বাল্য বিয়ের অনুষ্ঠানটি।

    স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য (ইউপি মেম্বার) মোসতাক আহমদ কালের কণ্ঠকে জানান, ‘আমার গ্রামেই বাল্য বিয়ের অনুষ্ঠানটি হচ্ছিল। আমি রাতেই এক দফা গিয়ে মাইক বাজানো বন্ধ করে দিই। ’

    ইউপি মেম্বার আরো জানান, শুনেছি রাতে কনের বাবা তার কন্যাকে বরের ঘরে নিয়ে আসেন। কনের বয়স ১৮ বছর না হওয়ায় বিবাহের কাবিননামাও রেজিষ্ট্রি করা সম্ভব হয়নি। কেবল ষ্ট্যাম্পে বর-কনের দস্তখত নিয়ে চুক্তিনামার মাধ্যমেই সম্পাদন করা হয় বাল্য বিয়েটি।

    Facebook Comments Box

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4757