শনিবার ২৪শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

৩ মাসে ভারতের সর্বনিম্ন আক্রান্ত, টিকাকরণে নতুন রেকর্ড

  |   মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১ | প্রিন্ট  

৩ মাসে ভারতের সর্বনিম্ন আক্রান্ত, টিকাকরণে নতুন রেকর্ড

ভারতে ৯১ দিনের মধ্যে প্রথম দৈনিক ৫০ হাজারের নিচে করোনা শনাক্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ৪২ হাজার ৬৪০ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। অন্যদিকে এক দিনে ৮৬ লাখের বেশি মানুষকে করোনার টিকা দিয়ে নতুন রেকর্ড গড়ল দেশটি।
মঙ্গলবার সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি প্রতিবেদনে জানিয়েছে, দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৪২ হাজার ৬৪০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ১৬৭ জনের। আগের দিন ৫৩ হাজার ২৫৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়। মারা যান ১ হাজার ৪২২ জন।
সবশেষ এ তথ্য নিয়ে ভারতে করোনায় সংক্রমিত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২ কোটি ৯৯ লাখ ৭৭ হাজার ৮৬১। মারা যাওয়া মানুষের সংখ্যা ৩ লাখ ৮৯ হাজার ৩০২।
ভারতে টানা ১৫ দিন ধরে ৫ শতাংশের নিচে করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার কমে ২ দশমিক ৫৬ শতাংশ হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মানদণ্ড অনুযায়ী, কোনো দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা, তা বোঝার একটি নির্দেশক হলো রোগী শনাক্তের হার। কোনো দেশে টানা দুই সপ্তাহের বেশি সময় পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে ধরা যায়।
এদিকে ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৬ লাখের বেশি মানুষকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। দেশটির সরকারের নতুন টিকাদান নীতি চালুর প্রথম দিনই এত মানুষকে টিকা দেওয়া হলো। ভারতে এক দিন এত মানুষকে টিকা দেওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম।
ভারতে সংক্রমণ নিম্নমুখী থাকলেও আগামী ছয় থেকে আট সপ্তাহের মধ্যে দেশটিতে করোনার তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে বলে সতর্ক করেছেন অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সের (এইমস) প্রধান চিকিৎসক রণদীপ গুলেরিয়া। ভারতে করোনার নতুন ধরন ডেলটা প্লাসের কারণে এ আশঙ্কার কথা প্রকাশ করেছেন গুলেরিয়া।
উল্লেখ্য, বিশ্বের কোনো দেশে এক দিনে সর্বোচ্চসংখ্যক করোনা রোগী শনাক্তের রেকর্ড ভারতের দখলে। গত ২২ এপ্রিলের আগপর্যন্ত এ রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্রের দখলে ছিল। যুক্তরাষ্ট্রে গত জানুয়ারিতে এক দিনে সর্বোচ্চ ২ লাখ ৯৭ হাজার ৪৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।
ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে সবচেয়ে বেশি করোনা শনাক্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। যুক্তরাষ্ট্রের পর ভারত। ভারতের পর ব্রাজিল। আর মৃত্যুর দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পর রয়েছে ভারত। ভারতে সংক্রমণ ‘বিস্ফোরণের’ জন্য করোনার ডেলটা বা ভারতীয় ধরনকে অনেকাংশে দায়ী করা হয়।
করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানলে মাস কয়েক আগে ভারতের বিভিন্ন রাজ্য বিধিনিষেধ আরোপ করে। এখন সংক্রমণ কমতে থাকায় বিভিন্ন রাজ্য সতর্কতার সঙ্গে বিধিনিষেধ শিথিল করছে। একই সঙ্গে করোনার সম্ভাব্য তৃতীয় ঢেউয়ের ব্যাপারেও রাজ্যগুলো প্রস্তুত হচ্ছে।

Facebook Comments Box


Posted ১:০৭ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১