শনিবার ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর স্বীকৃতি

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২ | প্রিন্ট

স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর স্বীকৃতি

স্বৈরশাসন আর অধিকার হরণের বিরুদ্ধে অক্লান্তভাবে রুখে দাঁড়ানো এক ব্যক্তি ও দুই সংগঠনের ঝুলিতে গেল ২০২২ সালের শান্তিতে নোবেল পুরস্কার—বেলারুশের মানবাধিকার-কর্মী আইনজীবী আলেস বিয়ালিয়াৎস্কি এবং রাশিয়া ও ইউক্রেনের দুই মানবাধিকার সংগঠন যথাক্রমে মেমোরিয়াল ও সেন্টার ফর সিভিল লিবার্টিজ। ঘটনাক্রমে সংশ্লিষ্ট তিনটি দেশই ইউক্রেনে চলমান যুদ্ধের সঙ্গে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে যুক্ত।

পুরস্কৃত তিন ব্যক্তি-সংগঠনকে এ স্বীকৃতি দেওয়ার কারণ তুলে ধরে নরওয়েজীয় নোবেল কমিটির চেয়ারম্যান বেরিট রাইস এন্ডারসেন বলেন, শান্তি পুরস্কার বিজয়ীরা নিজ নিজ দেশে সুধীসমাজের প্রতিনিধিত্ব করে। তারা বহু বছর ধরে ক্ষমতাসীনদের যৌক্তিক সমালোচনা করছে এবং নাগরিকদের মৌলিক অধিকার রক্ষার পক্ষে প্রচার করে আসছে। তারা যুদ্ধাপরাধ, মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং ক্ষমতার অপব্যবহারের তথ্য নথিভুক্ত করতে অসামান্য শ্রম ও প্রচেষ্টা দেখিয়েছে। শান্তি ও গণতন্ত্রের জন্য নাগরিক সমাজকে পথ প্রদর্শন করেছে তারা।

 

বেলারুশের মানবাধিকার সংগঠন ভিয়াসনা প্রতিষ্ঠা করেন আলেস বিয়ালিয়াৎস্কি। নিপীড়নের প্রতিবাদ করায় বারবার সরকারের বিরাগভাজন হয়েছেন তিনি। ২০১১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত কর ফাঁকির মামলায় বিয়ালিয়াৎস্কিকে কারারুদ্ধ করা হয়। ওই অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেছিলেন। ২০২০ সালে স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের পর বিয়ালিয়াৎস্কিকে আবারও গ্রেপ্তার করা হয়। এখনো তিনি বিনা বিচারে কারাবন্দি।

সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের একদল মানবাধিকারকর্মী ১৯৮৭ সালে মেমোরিয়াল সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন। সংস্থাটি সোভিয়েত এবং পরবর্তীকালে রাশিয়ায় হত্যা, নিপীড়ন ও নির্যাতনের শিকার হওয়া লোকদের তথ্য সংগ্রহ করেছে। সাবেক নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী আন্দ্রেই শাখারভ এবং মানবাধিকার আইনজীবী স্বেতলানা গানুশকিনা এই সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম ছিলেন। ২০২১ সালে মেমোরিয়ালকে নিষিদ্ধ করে তার সব শাখা বন্ধের নির্দেশ দেন মস্কোর সর্বোচ্চ আদালত।

 

ইউক্রেনে মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের ধারা এগিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্যে ২০০৭ সালে কিয়েভে সেন্টার ফর সিভিল লিবার্টিজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। সংস্থাটি ইউক্রেনকে একটি পূর্ণাঙ্গ গণতান্ত্রিক দেশে পরিণত করার জন্য অনবরত সরকারকে চাপ দিয়েছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে দেশটির বেসামরিক জনগণের বিরুদ্ধে রাশিয়ার যুদ্ধাপরাধের তথ্য শনাক্ত ও নথিভুক্ত করার কাজ করছে সংস্থাটি।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৬:১৭ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]