সোমবার ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চাদে বিক্ষোভ-সহিংসতায় নিহত ৫০

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শুক্রবার, ২১ অক্টোবর ২০২২ | প্রিন্ট

চাদে বিক্ষোভ-সহিংসতায় নিহত ৫০

মধ্য আফ্রিকার দেশ চাদে অগণতান্ত্রিক শাসন বিলুপ্ত করে দ্রুত গণতান্ত্রিক শাসনে ফেরার দাবিতে বিক্ষোভ-সহিংসতায় প্রায় ৫০ জন নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবারের এ ঘটনায় আহত হয়েছেন প্রায় ৩০০ জন।

বিক্ষোভ-সহিংসতার পর এক সংবাদ সম্মেলনে নিহতের সংখ্যা জানিয়েছেন চাদের প্রধানমন্ত্রী সালেহ কেবজাবো। বৃহস্পতিবারের এই ঘটনাকে তিনি সশস্ত্র বিদ্রোহ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন এবং সরকার এখনো হতাহতের সংখ্যা সংগ্রহ করছে বলেও জানিয়েছেন।

কিন্তু মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলো বলছে, বিক্ষোভকারীরা নিরস্ত্র ছিল এবং রাজধানী এন’জামেনাসহ অন্যান্য বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভরত বেসামরিক নাগরিকদের ওপর গণহত্যা চালিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী।

মধ্য আফ্রিকার বিশাল এই দেশটি ২০২১ সালের এপ্রিলে প্রেসিডেন্ট ইদ্রিস ডেবির মৃত্যুর পর থেকেই মূলত সংকটে রয়েছে এবং দেশটি এখন সামরিক বাহিনী পরিচালনা করছে। মৃত্যুর আগে টানা তিন দশক কঠোরভাবে দেশ শাসন করেছিলেন ইদ্রিস ডেবি।

অবশ্য ইদ্রিস ডেবির মৃত্যুর পর তার পুত্র মহামত ইদ্রিস ডেবি সঙ্গে সঙ্গে ক্ষমতা দখল করেন এবং ১৮ মাসের মধ্যে নির্বাচন আয়োজনে প্রাথমিকভাবে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু ১ অক্টোবর তিনি সেই নির্বাচন দুই বছর পিছিয়ে দেওয়ার ঘোষণা দেন।

বিরোধী দল এবং সুশীল সমাজের সংগঠনগুলো বৃহস্পতিবার বিক্ষোভের ডাক দেয়। মূলত প্রাথমিকভাবে সম্মত হওয়া ১৮ মাসের ট্রানজিশন পিরিয়ডের সমাপ্তি উপলক্ষেই এই বিক্ষোভের ডাক দেওয়া হয়। তবে নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে সরকার আগেই সেই বিক্ষোভ নিষিদ্ধ করে।

তবে বিক্ষোভকারীরা খুব সকালে রাস্তায় নেমে আসেন। পরে তারা রাস্তায় ব্যারিকেড দেন এবং নতুন প্রধানমন্ত্রীর দলীয় সদর দফতরে অগ্নিসংযোগ করেন। মূলত ইদ্রিস ডেবির সরকারের সাবেক বিরোধী সালেহ কেবজাবোকে গত সপ্তাহে নতুন ‘ঐক্য সরকারের’ প্রধানমন্ত্রী মনোনীত করা হয়।

বৃহস্পতিবারের ঘটনার পর এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আজ যা ঘটেছে তা হলো- শক্তির মাধ্যমে ক্ষমতা দখলের জন্য একটি সশস্ত্র অভ্যুত্থান এবং এই সহিংসতার জন্য দায়ী ব্যক্তিরা বিচারের মুখোমুখি হবে।’

কেবজাবো দাবি করেন, ‘বিক্ষোভকারীদের কাছে আগ্নেয়াস্ত্র ছিল এবং তারা বিদ্রোহী বলে বিবেচিত হবে। নিরাপত্তা বাহিনী শুধুমাত্র আত্মরক্ষায় জবাব দিয়েছে।’

অবশ্য ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন ফর হিউম্যান রাইটস এবং চাদে তাদের অংশীদার সংস্থাগুলো বলেছে, বৃহস্পতিবারের বিক্ষোভ নিরাপত্তা বাহিনী সহিংসভাবে দমন করেছে। এমনকি বিক্ষোভে তাজা গুলিবর্ষণ, নির্যাতন এবং নির্বিচারে গ্রেফতারের ঘটনাও ঘটেছে।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের গবেষক আবদৌলায়ে দিয়ারা বলেছেন, সাক্ষীদের বিবরণ এবং এদিনের ছবি ও ভিডিও বিশ্লেষণের ভিত্তিতে নিরাপত্তা বাহিনী বিক্ষোভকারীদের ওপর তাজা গুলি ব্যবহার করেছে বলে দেখা গেছে।

সূত্র: রয়টার্স

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৪:২৭ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ২১ অক্টোবর ২০২২

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]