সোমবার ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মাটির নিচে রয়েছে তিন টন সোনা-রুপা, এক ধাঁধার উত্তরেই মিলবে গুপ্তধনের সন্ধান

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   রবিবার, ১১ ডিসেম্বর ২০২২ | প্রিন্ট

মাটির নিচে রয়েছে তিন টন সোনা-রুপা, এক ধাঁধার উত্তরেই মিলবে গুপ্তধনের সন্ধান

দরুন সকালে উঠে চোখ খুলে দেখলেন প্রাসাদে শুয়ে রয়েছেন। সেখানে হাজার হাজার পরিচারক। বাড়ির সামনে গাড়ির সারি সারি। রাতারাতি হাতে এসে গিয়েছে শতাধিক বছরের পুরনো গুপ্তধন! পুরো দুনিয়ায় এ ধরনের গুপ্তধন সঞ্চয় বা উদ্ধারের ঘটনা কম নয়। আমেরিকার ভার্জিনিয়া প্রদেশের এ রকমই এক গুপ্তধনের চাবিকাঠি আজও অধরা মানুষের।

অষ্টদশ শতকের কথা। ভার্জিনিয়া প্রদেশে কয়েক কোটি ডলারের সোনা-রুপা, লুকিয়ে রেখেছিলেন আমেরিকার অ্যাডভেঞ্চারার টমাস বিল। গুপ্তধন কোথায় লুকিয়ে রেখেছেন, তার কোনো মানচিত্র রেখে যাননি বিল। বদলে গোপন সঙ্কেত রেখে গিয়েছিলেন। ২০০ বছর পেরিয়ে গেলেও সেই সঙ্কেতের পাঠোদ্ধার হয়নি। গত ২০০ বছরে অনেক চেষ্টা হয়েছে। অনেক ইতিহাসবিদ মনে করেন টমাস বিল নামে কেউ কখনো ছিলেন না। অনেক অভিযানকারী মনে করেন, বিলের রেখে যাওয়া সম্পদ বহু যুগ আগেই লোকজন মাটি খুঁড়ে হাতিয়ে নিয়েছে। সঙ্কেতের পাঠোদ্ধারও হয়ে গিয়েছে। অনেকে আবার হাল ছেড়ে দিয়েছেন। তাদের দাবি, সঙ্কেতের ধাঁধার পাঠোদ্ধার সম্ভব নয়। কিন্তু আসল সত্যিটা আজও অধরা।

টমাস বিল ছিলেন ভার্জিনিয়ার বাসিন্দা। অষ্টদশ শতকের শুরুতে ৩০ জন শিকারি, খননকারী এবং অভিযাত্রীদের নিয়ে আমেরিকার পশ্চিমের দিকে যাত্রা করেছিলেন তারা। মেক্সিকো অঞ্চলে একের পর এক মহিষ শিকার করেছিলেন তারা। যদিও লক্ষ্য ছিল সোনার খনি উদ্ধার। অনেক খোঁজের পরেও মিলছিল না খনি। শেষে সান্তা ফে এলাকায় একটি সোনা এবং রুপার খনির হদিস পান বিলরা। এরপর ১৮ মাস ধরে খনন চালিয়ে কোটি কোটি টাকার সোনা-রুপা উদ্ধার করে দলটি। বিলের ইচ্ছে ছিল উদ্ধার হওয়া সোনা-রুপা নিয়ে বাড়ি ফিরে যাবেন। কিন্তু বাকিরা রাজি হননি। তারা আরো সোনা-রুপার খনির হদিস পেতে চাইছিলেন। শেষ পর্যন্ত বিল নিজের ভাগের সোনা-রুপা নিয়ে ভার্জিনিয়া ফিরে আসেন। সেখানকার বেডফোর্ড কাউন্টির মন্টভেলে সে সব পুঁতে দেন।

১৮২২ সালে আবার পশ্চিমে অভিযানের ডাক পড়ে বিলের। বুঝতে পারেন নিজের ধনসম্পদ নিয়ে আর পশ্চিমে পাড়ি দিতে পারবেন না তিনি। তাই লুকিয়ে রাখা সম্পদের হদিস জানিয়ে তিনটি সঙ্কেত তৈরি করেন। প্রথমটিতে রয়েছে সম্পদ লুকিয়ে রাখার ঠিকানা। দ্বিতীয় সঙ্কেতে লেখা রয়েছে, সম্পদের হিসাব। তৃতীয় সঙ্কেতে বলা হয়েছে, ঐ সম্পদ উদ্ধার হলে তার মালিকে হবেন। সেই সঙ্কেত একটি লোহার বাক্সে ভরে তা স্থানীয় এক সরাইখানার মালিককে দিয়ে যান বিল। সরাইখানার মালিক রবার্ট মরিসকে পরের ১০ বছর পর্যন্ত সেই বাক্স নিজের জিম্মায় রাখতে বলেন। ১০ বছরের মধ্যে তিনি না ফিরলে তখনই খুলতে বলেন সেই বাক্স। কয়েক মাস পর মিসৌরির সেন্ট লুই থেকে মরিসকে একটি চিঠি লিখেছিলেন বিল। বলেছিলেন, সেই সঙ্কেতের বাক্স নিতে তার এক বন্ধু আসবেন। তার হাতেই যেন মরিস তুলে দেন সেই বাক্স। যদিও শেষ পর্যন্ত কেউ আসেননি।

শেষ পর্যন্ত ১৮৪৫ সালে সেই লোহার বাক্স খোলেন মরিস। দেখেন, তাতে রয়েছে তিনটি সঙ্কেত। সঙ্গে ইংরেজিতে লেখা দুই পাতার নোট। অনেক চেষ্টার পরেও কিছুই বুঝতে পারেননি মরিস। নিজের এক বন্ধুর কাছে নিয়ে যান সঙ্কেত রাখা সেই বাক্স। কয়েক মাসের চেষ্টায় দ্বিতীয় সঙ্কেতের অর্থ বার করেন সেই বন্ধু। বুঝতে পারেন, কত কোটি কোটি ডলারের সম্পদ লুকিয়ে রেখে গিয়েছেন বিল। সেই তালিকা নেহাত মন্দ নয়। সঙ্কেত দেখে মরিসের বন্ধুর মনে হয়েছিল দুইটি জায়গায় দুইবারে সোনা-রুপা লুকিয়েছিলেন বিল। তালিকা অনুযায়ী, প্রথম জায়গায় ছিল ৪৬০ পাউন্ড সোনা। সঙ্গে ছিল প্রায় ১,৭৩০ কোজি রুপা। তালিকা অনুযায়ী দ্বিতীয় জায়গায় ৮৬৫ কেজি সোনা লুকিয়ে রেখে গিয়েছিলেন বিল। সঙ্গে ছিল প্রায় ৫৮৪ কেজি রুপা। সব মিলিয়ে প্রায় তিন টন সোনা-রুপা ও অন্য দামি গয়না রেখে গিয়েছিলেন বিল।

দ্বিতীয় সঙ্কেত থেকে আরো কিছু তথ্য বুঝতে পারেন মরিসের বন্ধু। বুঝতে পারেন, বিপুল সেই সম্পদ বেডফোর্ড কাউন্টির কোনো এক মাঠে মাটি থেকে ছয়ফুট গভীরে পোঁতা রয়েছে। জনপ্রিয় পানশালা বাফোর্ড থেকে সাড়ে ছয় কিলোমিটার দূরে রয়েছে সেই মাঠ। যদিও প্রথম সঙ্কেতটি কোনো দিনই পাঠোদ্ধার করা যায়নি। সেখানেই লেখা ছিল, মাঠের ঠিক কোন জায়গায় পুঁতে দেওয়া হয়েছিল সেই সোনা-রুপা। কয়েক বছর পর মারা যান মরিস। সঙ্কেতের পাঠোদ্ধার তিনি আর করে যেতে পারেননি। সঙ্কেতের মানে বোঝার দায়িত্ব নেন গবেষক জেমস বি ওয়ার্ড। তিনিও বুঝতে পারেননি প্রথম সঙ্কেতের মানে। ১৮৮৫ সালে সেই সঙ্কেত লিখে প্রচারপুস্তিকা ছাপান জেমস। তারপর সেই প্রচারপুস্তিকা পুরো ভার্জিনিয়ায় বিলি করে দেন তিনি। জানান, কেউ যদি সঙ্কেতের পাঠোদ্ধার করে সোনা-রুপার হদিস দিতে পারেন, তা হলে সম্পদের মালিক হবেন তিনিই।

এরপর পুরো প্রদেশের মানুষ ভিড় জমান বেডফোর্ডে। যেখানে, সেখানে শুরু হয় অবৈধ খনন। কেটে ফেলা হয় গাছ। তাতেও সুরাহা হয়নি। মেলেনি সেই সম্পদ। অনেক বাসিন্দাই হতাশ হয়ে দাবি করেন, আসলে কিছুই রেখে যাননি বিল। পুরোটাই ধোঁকা। এরপর বহু বছর কেটে গিয়েছে। কম্পিউটারের কোড ব্রেকিং প্রোগ্রামের মাধ্যমে সঙ্কেত ভাঙার চেষ্টা হয়েছে। লাভ হয়নি। দ্বিতীয় সঙ্কেত, যার পাঠোদ্ধার প্রায় ১৮০ বছর আগেই হয়ে গিয়েছে, সেটিরও ব্যাখ্যা দিতে পারেনি যন্ত্র। গবেষকদের মতে, দ্বিতীয় সঙ্কেত এত সহজ হলে প্রথম দুইটি এতো কঠিন কেন হবে? তাদের দাবি, আসলে কোনো গুপ্তধনই ছিল না। আবার অন্য একটি পক্ষ মনে করে, সঙ্কেত দুইটি খুবই সহজ। সে কারণে তার পাঠোদ্ধার আগেই হয়ে গিয়েছে। বাকিরা অকারণে তা জটিল করে দেখছে আর গোলকধাঁধা তৈরি করছে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১০:১২ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ১১ ডিসেম্বর ২০২২

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]