সোমবার ২৭শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ধানের ন্যায্যমূল্য পেয়ে কৃষকের মুখে হাসি

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   বুধবার, ১৭ মে ২০২৩ | প্রিন্ট

ধানের ন্যায্যমূল্য পেয়ে কৃষকের মুখে হাসি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে ধান সংগ্রহের জন্য প্রায় ৮শ কৃষককের মধ্য থেকে ৪৬৬ কৃষককে ধান বিক্রির জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে। নির্বাচিত হওয়ায় ওইসব কৃষকরা সরকারি মূল্যে খাদ্য গুদামে তাদের উৎপাদিত ধান বিক্রি করবেন।
এদিকে ধানের ন্যায্যমূল্য পেয়ে আনন্দের হাসি ফুটে উঠেছে স্থানীয় কৃষকদের মাঝে। কিন্তু দীর্ঘ বছর ধরে সিন্ডিকেটের কবলে পড়ায় স্থানীয় কৃষকদের ধান বিক্রিতে নানা বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়েছিল। গত কয়েক বছর ধরে যাচাই বাছায়ের মাধ্য এ কার্যক্রম শুরু হওয়ায় স্থানীয় কৃষকরা খুবই খুশি।

এদিকে মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলা পরিষদ চত্বরে বোরো ধান সংগ্রহ অভিযান কার্যক্রম আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে। উপজেলার দক্ষিণ ইউপির সাতপাড়া গ্রামের কৃষক মো. সেলিম খন্দকার, মো. ফেরদৌস মিয়া, দিনাত মিয়া ও আব্দুল্লাহপুর গ্রামের আহমদ হোসাইন চৌধুরীসহ ৪ জন কৃষকের কাছ থেকে ১০ টন ধান কেনার মাধ্যমে এ কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হয়।

এরই অংশ হিসেবে কৃষি কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ে কৃষক যাচাই বাছাই করে তালিকা তৈরি করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অংগ্যজাই মারমা।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (অতিরিক্ত) দায়িত্ব মো. কাউছার সজীবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহানা বেগম, খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোছাম্মদ নাজমুন নাহার, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাপস চক্রবর্তী প্রমুখ। এরপর থেকে কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ধান গুদামে নিয়ে বিক্রি করবেন। আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত ধান সংগ্রহ অভিযান চলবে। উপজেলা প্রশাসন, খাদ্য ও কৃষি বিভাগ এ আয়োজন করেন।

জানা যায়, এ উপজেলায় চলতি মৌসুমে সরকার বোরো ধান কেনার জন্য কৃষকদের তালিকা প্রণয়ন করা হয়। পৌর শহরসহ উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন থেকে ৮শ কৃষককের মধ্য থেকে ৪৬৫ জন কৃষককে ধান বিক্রির জন্য যাচাই বাছাই করা হয়। সরকারিভাবে কৃষকের কাছ থেকে ৪৬৬ মেট্রিক টন ধান কেনা হবে। প্রতি কেজি ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ টাকা। কেজি ধরে প্রতি মণ ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয় ১২শ টাকা। একজন কৃষক ৩ মেট্রিক টন ধান বিক্রি করতে পারবেন।

সাতপাড়া পৌর শহরের শহরের কৃষক মো. ফেরদৌস মিয়া বলেন, এ মৌসুমে নিজেদের উৎপাদিত বোরো ধান নিয়ে অনেকটাই দুশ্চিন্তায় ছিলাম। কারণ ধান আবাদ থেকে শুরু করে কাটা পর্যন্ত অনেক টাকা খরচ হয়। তাছাড়া স্থানীয় বাজারে ধানের দাম অনেকটাই কম হওয়ায় বিক্রিতে অনেক লোকসান গুনতে হতো। কিন্তু কৃষি কর্মকর্তাদের যাচাই বাচায়ের মাধ্যমে ধান বিক্রি সুযোগ পাওয়ায় খুবই ভালো লাগছে। তাই ২ মণ ধান দিতে পেরে খুবই খুশি।

কৃষক সিরাজ মিয়া বলেন, শ্রমিকের মজুরি, সার, সেচসহ কৃষি উপকরের মূল্য বৃদ্ধি অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু ধানের ন্যায্যমূল্য না পেলে অনেক লোকসান গুনতে হতো। কৃষি অফিসের তত্ত্বাবধানে ধান বিক্রির সুযোগ পাওয়ায় খুবই খুশি।

কৃষক মো. আলম খাঁ বলেন, অনেক কষ্টে এবার বোরো ধান আবাদ করা হয়। ধান কাটা শুরু হয়েছে। জমিতে ধানের ফলন ভালো হয়েছে। ধান বিক্রিতে লটারিতে নাম উঠায় খুবই খুশি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহানা বেগম বলেন, ধান বিক্রি করতে ইচ্ছুক প্রতিটি ইউনিয়নের কৃষকদের কৃষি কার্ড জমা নিয়ে তালিকাভুক্ত করা হয়। পৌর শহরসহ উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন থেকে ৮শ কৃষকের মধ্য থেকে যাচাই বাচাই করে ৪৬৬ জন কৃষককে ধান বিক্রির জন্য নির্ধারণ করা হয়। সরকারিভাবে কৃষকের কাছ থেকে ৪৬৬ মেট্রিক টন ধান কেনা হবে। প্রতি কেজি ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ টাকা। অত্যন্ত স্বচ্ছতার সঙ্গে এ প্রক্রিয়ার কার্যক্রম করা হয়।

তিনি আরো বলেন, যেসব কৃষক তালিকায় অন্তরভুক্ত হয়নি অথচ তাদের কাছে ধান রয়েছে, তারা সরকারি মূল্যে ধান বিক্রি করতে পারবেন। এ জন্য কৃষকদের দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই।

উপজেলা খাদ্যনিয়ন্ত্রক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাউছার সজীব জানান, উপজেলা ধান সংগ্রহ কমিটির নির্দেশনা ও কৃষি বিভাগ থেকে তালিকাভুক্ত কৃষকদের নাম সরবরাহ করা হয়েছে। তালিকাভুক্ত কৃষকদের কাছ থেকে চিটামুক্ত শুকনা ধান সংগ্রহ করা হবে। প্রথম দিন ৪ জন কৃষকের কাছ থেকে ১০ টন ধান কেনা হয়েছে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৭:১০ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ১৭ মে ২০২৩

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]