সোমবার ২৭শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সড়কে দ্বিতীয় স্ত্রীর প্রতিবাদ, সেই ইউএনও ওএসডি

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শুক্রবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | প্রিন্ট

জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আরিফুল ইসলামকে ওএসডি করা হয়েছে। সড়কে দ্বিতীয় স্ত্রীর প্রতিবাদের পর তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব কানিজ ফাতেমা স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে তাকে ওএসডি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংযুক্ত করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জয়পুরহাট জেলা প্রশাসক সালেহীন তানভীর গাজী।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আরিফুল ইসলামকে পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (সিনিয়র সহকারী সচিব) পদে নিয়োগ করা হলো। জনস্বার্থে জারি করা এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে।

জানা গেছে, বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে স্ত্রীর অধিকার পেতে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আরিফুল ইসলামের কার্যালয়ে অবস্থান নিয়েছিলেন জিনাত আরা খাতুন কলি নামে এক শিক্ষিকা। তিনি দিনাজপুরের কলেজিয়েট গার্লস হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক।

ওইদিন বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে জিনাত আরা খাতুন সন্তান নিয়ে ইউএনওর কার্যালয়ে যান। এ সময় তার পরিবারের লোকজন সঙ্গে ছিলেন। সেখানে হৈচৈ শুরু হয়। একপর্যায়ে ইউএনও জিনাতের মোবাইল কেড়ে নিয়ে আনসার সদস্যদের দিয়ে হেনস্তা করে বাইরে বের করে দেন। তখন জিনাত ইউএনওর কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনের সড়কে বাস থামিয়ে অনশন শুরু করেন। এ নিয়ে বেশ উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়। ঘটনার পর ইউএনওর স্ত্রীকে নিয়ে উপজেলা পরিষদে গিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা বসে বিষয়টি মীমাংসা করার চেষ্টা করেন এবং সুবিচার করার প্রতিশ্রুতি দেন।

জিনাত আরা খাতুনের দাবি, ২০২১ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের রেস্ট হাউসে তাদের বিয়ে হয়। তাদের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। আরেকটি সন্তান গর্ভেই নষ্ট করতে বাধ্য করেন ইউএনও মো. আরিফুল ইসলাম। চলতি মাসের ২৪ সেপ্টেম্বর ইউএনও একতরফা তালাক দেন, এটি তিনি জানতেন না। সব মাধ্যম থেকে যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়ায় তিনি স্ত্রীর মর্যাদা পেতে সন্তানকে নিয়ে ইউএনও কার্যালয়ে এসে অবস্থান নেন।

ইউএনও আরিফুল ইসলাম জানান, জিনাত আরার সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল, কিন্তু এখন তাদের ডিভোর্স হয়ে গেছে। সিনক্রিয়েট করার জন্য এখানে এসেছিল সে। এটা ব্যক্তিগত বিষয় ছিল। আইনগতভাবে সমাধান করা হবে।

জিনাত আরা বলেন, এক সপ্তাহ আগেও সে আমার সঙ্গে দেখা করেছে। হঠাৎ করেই যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় সে। প্রথম সংসার বাাঁচাতে এরকম করতেছে সে। তাহলে আমার সংসারের কী হবে?

এদিকে ওএসডি করার পর ইউএনও আরিফুলের সঙ্গে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৮:১০ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]