শুক্রবার ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পাকিস্তানে দফারফা শেষে সরকারে আসছে নতুন জোট

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | প্রিন্ট

পাকিস্তানে দফারফা শেষে সরকারে আসছে নতুন জোট

পাকিস্তানে নির্বাচনকে ঘিরে ৮ ফেব্রুয়ারি দেশজুড়ে মোবাইল ফোন এবং ইন্টারনেট পরিষেবা স্থগিত করা হয়। তা সত্ত্বেও বিপুল সংখ্যক মানুষ ৮৫৫টি নির্বাচনি এলাকায় অংশগ্রহণমূলক পরিবেশে জাতীয় এবং প্রাদেশিক পরিষদের জন্য পছন্দের প্রতিনিধিদের ভোট দিয়েছেন। তবে ভোটের পরিবেশ স্বাভাবিক থাকলেও অস্বাভাবিকতা দেখা দিয়েছে ফলাফল প্রকাশে। ভোটগ্রহণের তিন দিনেও আনুষ্ঠানিক কোনো ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। তবে কোনো দল এককভাবে সরকার গড়তে প্রয়োজনীয় আসন পাচ্ছে না, এটা প্রায় নিশ্চিত। এ পরিস্থিতিতে জোট সরকার গড়তে ঐকমত্যে পৌঁছেছে পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ও পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)।

পিএমএল-এন সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের দল। আর পিপিপির প্রধান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি। তিনি দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারি ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টার সন্তান।

পাকিস্তানে এবারের নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও কারাবন্দী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) ও পিএমএল-এনের মধ্যে। যদিও আইনি প্রতিবন্ধকতার কারণে পিটিআই দল হিসেবে নির্বাচন করতে পারেনি। এই দলের সমর্থিত প্রার্থীরা স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। তবে পিটিআই ও পিএমএল-এন দুই দলই নিজেদের বিজয়ী দাবি করেছে। এ পরিস্থিতিতে জোট গড়ে ক্ষমতায় যাওয়ার তোড়জোড় শুরু করেছেন নওয়াজ শরিফ।

পিপিপির চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি ও তার বাবা পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারির সঙ্গে বৈঠক করেছেন পিএমএল-এনের প্রেসিডেন্ট শাহবাজ শরিফ। এ সময় শাহবাজ শরিফ ‘পাকিস্তানের জন্য একসঙ্গে কাজ করতে’ পিপিপির শীর্ষ নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান।

পাঞ্জাবের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান মহসিন নাকভির বাড়িতে এই বৈঠক হয়। বৈঠক-সংশ্লিষ্ট একটি সূত্রের বরাত দিয়ে জিও নিউজের খবরে বলা হয়, বিলাওয়াল ও আসিফ জারদারির সঙ্গে শাহবাজ শরিফের বৈঠকে জোট বেঁধে কেন্দ্রে ও পাঞ্জাবে সরকার গড়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, ৪৫ মিনিট ধরে চলা বৈঠকে পিপিপির শীর্ষ নেতাদের কাছে নওয়াজ শরিফের বার্তা পৌঁছে দেন শাহবাজ। সেই সঙ্গে তিনি ভবিষ্যতে পাকিস্তানের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য পিপিপি ও পিএমএল-এনের নেতাদের বৈঠকে বসার আহ্বান জানান।

কেন্দ্র ও পাঞ্জাবে জোট বেঁধে ক্ষমতায় যাওয়ার কৌশল নির্ধারণ করতে দুই দলের নেতারা অবিলম্বে আলোচনায় বসবেন বলেও সম্মত হয়েছেন শাহবাজ ও জারদারি।

পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে ২৬৬ আসনে সরাসরি ভোট হয়। নির্বাচনের আগে দুর্বৃত্তের গুলিতে একজন প্রার্থী নিহত হওয়ায় একটি আসনে ভোট স্থগিত করা হয়েছিল আগেই। ফলে ভোট হয়েছে ২৬৫ আসনে। এককভাবে সরকার গঠন করতে কোনো দলকে ১৩৪টি আসনে জিততে হবে।

পাকিস্তান নির্বাচন কমিশনের (ইসিপি) সর্বশেষ ফল অনুযায়ী, শনিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৫০টি আসনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৯৯ আসনে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। তাদের বেশির ভাগই পিটিআইয়ের সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। এরপর পিএমএল-এন ৭১টি, পিপিপি ৫৩ এবং এমকিউএম ১৭টি আসনে জয়ী হয়েছে। অন্যান্য দল পেয়েছে ১০টি আসন।

এর আগে ২০২২ সালে পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটের মাধ্যমে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ক্ষমতা থেকে সরাতে পিপিপি ও পিএমএল-এন একসঙ্গে জোট গড়েছিল।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৭:১৩ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

(199 বার পঠিত)
(189 বার পঠিত)
advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]