মঙ্গলবার ২৩শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জুমার পূর্বে চার রাকাত সুন্নত পড়া যে কারণে জরুরি

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪ | প্রিন্ট

জুমার পূর্বে চার রাকাত সুন্নত পড়া যে কারণে জরুরি

জুমুআর পূর্বে ‘নামাজ’ পড়ার কথা ও জুমুআর পূর্বের ‘চার রাকাত’ সুন্নাতে মুআক্কাদা নামাজ সহিহ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং সাহাবায়ে কেরামের কথা ও আমল দ্বারা সুসাব্যস্ত৷ এটাই জুমহূর উলামায়ে কেরামের মত।

রাকাত সংখ্যা কত বা কেমন সুন্নাত; মুআক্কাদা নাকি মুআক্কাদা নয়, সেটা নিয়ে উলামায়ে কেরামের মাঝে মৃদু দ্বিমত থাকলেও জুমাপূর্ব নামাজ যে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও সাহাবায়ে কেরাম পড়তেন, এতে কোনো দ্বিমত নেই। তাছাড়া সাহাবায়ে কেরামের নিয়মিত আমল ও এর প্রতি নির্দেশ প্রদান মুআক্কাদা হওয়ারই প্রমাণ বহন করে।

আযান ও ইকামতের মধ্যবর্তী সময়ে সুন্নাত নামাজ পড়ার বিষয়টি তো বুখারী-মুসলিমসহ প্রায় সবগুলো কিতাবের সহিহ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত।

হাদিস শরিফে এসেছে-
بَينَ كلِّ أذانينِ صلاةٌ
অর্থাৎ দুই আযানের (আযান ও ইকামতের) মধ্যবর্তী সময়ে নামাজ রয়েছে৷ (বুখারী হাদিস নং-৬২৭ মুসলিম হাদিস নং-৮৩৮)

আবু হুরায়রা রাযি. থেকে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-

مَنِ اغْتَسَلَ ثُمَّ أتَى الجُمُعَةَ، فَصَلَّى ما قُدِّرَ له، ثُمَّ أنْصَتَ حتَّى يَفْرُغَ مِن خُطْبَتِهِ، ثُمَّ يُصَلِّي معهُ، غُفِرَ له ما بيْنَهُ وبيْنَ الجُمُعَةِ الأُخْرَى، وفَضْلُ ثَلاثَةِ أيَّامٍ.

অর্থ: যে ব্যক্তি গোসল করে, এরপর জুমায় আসে, এরপর তাওফীক মতো নামাজ পড়ে, এরপর চুপ থাকে (ইমাম) তার খুতবা সমাপ্ত করা পর্যন্ত, এরপর তার সাথে নামাজ পড়ে, তার অন্য জুমা পর্যন্ত ও আরো তিন দিনের (গুনাহ) মাফ করে দেওয়া হয়। (সহিহ মুসলিম হাদিস নং- ৮৫৭)

জুমাপূর্ব চার রাকাত সুন্নাত নামাজ সহিহ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত৷ সুন্নাহসম্মত৷ এটাই অগ্রগণ্য মত৷

عن أبي عبد الرحمن السلمي رضي الله عنه قال: كان عبد الله يأمرنا أن نصلي قبل الجمعة أربعاً، وبعدها أربعاً، حتى جاءنا عليٌّ فأمرنا أن نصلي بعدها ركعتين ثم أربعاً. وجاء في آثار السنن: إسناده صحيح

অর্থ: আবু আবদুর রহমান আস-সুলামী রা. বলেন- আবদুল্লাহ ইবনু মাসউদ রাযি. আমাদেরকে জুমুআর আগে চার রাকাত এবং জুমুআর পর চার রাকাত নামাজ পড়তে নির্দেশ দিয়েছেন৷ (মুসান্নাফে আব্দুর রাযযাক হাদিস নং-৫৫২৫, সনদ সহিহ)

এই বর্ণনায় লক্ষণীয় বিষয় এই যে, খলিফায়ে রাশিদ আলী ইবনু আবী তালিব রাযি. যখন কুফায় এসে আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.-এর শিক্ষা দেখলেন এবং তার আদেশ সম্পর্কে অবগত হলেন তখন তিনি কাবলাল জুমুআর বিষয়ে কোনো পরিবর্তন করেন নি, শুধু বা’দাল জুমুআ চার রাকাতের সাথে আরো দুই রাকাত যোগ করার আদেশ করেছেন। ফলে পরবর্তী সময়ে ইমাম আবু ইউসুফ রাহ.সহ আরো অনেক ইমামের নিকটে, জুমুআর পরের সুন্নত সর্বমোট ছয় রাকাত। এ থেকেও প্রমাণিত হয় যে, আলী ইবনু আবী তালিব রাযি.-এর নিকটেও কাবলাল জুমুআর সুন্নত চার রাকাত৷

আলী রাযি. থেকে বর্ণিত-
كان رسول الله صلى الله عليه وعلى آله وصحبه وسلم يصلي قبل الجمعة أربعاً، وبعدها أربعاً، يجعل التسليم في آخرهن ركعة.

অর্থ: রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জুমুআর পূর্বে চার রাকাত এবং পরে চার রাকাত নামাজ এক সালামে আদায় করতেন৷ (তাবারানী: ২/১৭২)

عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ رَضِيَ اللهُ عَنهُما، قَالَ: كَانَ رَسُولُ الله صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَعلى آلِهِ وَصَحْبِهِ وَسَلَّمَ يَرْكَعُ قَبْلَ الجُمُعَةِ أَرْبَعًا، وَبَعْدَهَا أَرْبَعًا لا يَفْصِلُ بَيْنَهُنَّ.

অর্থ: ইবনু আব্বাস রাযি. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জুমুআর আগে চার রাকাত এবং জুমুআর পরে চার রাকাত নামাজ এক সালামে আদায় করতেন৷ (ইবনু মাজাহ হাদিস নং-১১২৯, আবুল হাসান খালঈ এই হাদিসের সনদকে উত্তম বলেছেন৷ তারহুত-তাসরীব: ৩/৪১, ইলাউস সুনান: ৭/১০)

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৬:০৯ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]