রবিবার ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘এটাই হয়তো শেষ কথা, আব্বু বেঁচে থাকলে দেখা হবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০২৪ | প্রিন্ট

‘এটাই হয়তো শেষ কথা, আব্বু বেঁচে থাকলে দেখা হবে’

ভারত মহাসাগরে সোমালিয়ার জলদস্যুদের কবলে পড়া বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজের নাবিকদের পরিবারে বিরাজ করছে উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠা। জাহাজটিতে থাকা ২৩ নাবিকের মধ্যে রয়েছেন ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার ইব্রাহিম খলিল উল্ল্যাহ বিপ্লব। তিনি জাহাজের ইলেক্ট্রিশিয়ান পদে কর্মরত।

মঙ্গলবার (১২ মার্চ) বিকেল ৫টা ২৪ মিনিটে বাবার সঙ্গে মোবাইলে সর্বশেষ কথা হয় তার। এরপর রাত ১০টার দিকে তিনি তার স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। বিপ্লব উপজেলার মাতুভূঞা ইউনিয়নের মোমারিজপুর গ্রামের আবুল হোসেনের বড় ছেলে। তার স্ত্রী এবং দুই ছেলে সন্তান রয়েছে।

বিপ্লবের বাবা আবুল হোসেন বলেন, মঙ্গলবার বিকেল ৫টা ২৪ মিনিটের দিকে আমার সঙ্গে ছেলের (বিপ্লব) ফোনে কথা বলে। সে আমাকে ঘটনাটি জানায়। সে বলে, জলদস্যুরা আমাদের জাহাজ আটক করেছে। আমার একটি মোবাইল তারা ছিনিয়ে নিয়ে গেছে। এটি লুকিয়ে রেখে বাথরুমে এসে কল দিয়েছি। বেশি কথা বলতে পারছি না। এটাই হয়তো শেষ কথা। আব্বু বেঁচে থাকলে দেখা হবে, সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন।’

বিপ্লবের স্ত্রী উম্মে সালমা সোনিয়া বলেন, মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে তার সঙ্গে সর্বশেষ কথা হয়েছে। এই ঘটনা শোনার পর থেকে আমার দুই ছেলেকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছি। আমার স্বামীকে সুস্থ ভাবে ফিরিয়ে আনতে সরকার এবং জাহাজ মালিকের কাছে আবেদন করছি।

বিপ্লবের বড় ছেলে রেদোয়ান বিন ইব্রাহিম বলেন, রাতে আব্বুর সঙ্গে কথা হয়েছিল। তখন আমাকে দুষ্টামি না করে মায়ের কথামত চলতে বলেছেন। বাড়িতে আসার সময় আমার জন্য অনেক কিছু নিয়ে আসবেন বলেছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, আবুল হোসেনের চার ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে বিপ্লব সবার বড়। ৮ বছর আগে তিনি জাহাজের চাকরিতে যান। চার মাস আগে বাড়িতে এসে একমাস ছুটি কাটিয়ে গেছেন। বর্তমানে বিপ্লবের স্ত্রী দুই ছেলেকে নিয়ে ফেনী শহরে বসবাস করছেন।

দাগনভূঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নিবেদিতা চাকমা বলেন, এরমধ্যে বিপ্লবের বিষয়টি অবগত হয়েছি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে তার পরিবারকে আমরা সর্বোচ্চ সহযোগিতা করব।

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার (১২ মার্চ) বাংলাদেশ সময় দুপুরে ভারত মহাসাগরে সোমালিয়ার জলদস্যুর কবলে পড়ে বাংলাদেশের পতাকাবাহী জাহাজ ‘এমভি আবদুল্লাহ’। এ সময় শিল্পগ্রুপ কেএসআরএমের মালিকানাধীন এসআর শিপিংয়ের জাহাজটির নিয়ন্ত্রণে নেয় সোমালিয়ান দস্যুরা। এদিন বিকেলে জাহাজটি সোমালিয়ার দিকে নিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া যায়। জাহাজে ২৩ জন নাবিক রয়েছেন।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৭:৩৯ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১৪ মার্চ ২০২৪

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]