রবিবার ২৬শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দক্ষিণ কোরিয়ায় চলছে চালকবিহীন বাস

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪ | প্রিন্ট

দক্ষিণ কোরিয়ায় চলছে চালকবিহীন বাস

দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে মাঝরাতে দেখা মিললো চাকাবিহীন এ-২১ বাস। বাসের সবই ঠিকঠাক বাসটি রাস্তার কোণে বাঁক নিচ্ছে এবং ট্র্যাফিক লাইটে থামছে, তবে বাসটিতে নেই কোন চালক। বাসটি আসলে চলছে নিয়ন্ত্রণকারী কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে।

রোববার (২১ এপ্রিল) এক প্রতিবেদনে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি এ তথ্য জানায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায়শই শহরের রাস্তায় দেখা মিলছে স্ব-চালিত নাইট বাস। যা এভি হিসাবেও পরিচিত।

স্মার্ট ইয়র মোবিলিটি-এর অপারেশন প্রধান পার্ক কাং-উক বলেছেন, একদিন সিউলের সমস্ত বাস চালকবিহীন হয়ে যাবে। কারণ হিসেবে তিনি ব্যাখ্যা দিয়েছেন, বর্তমানে এমন লোক খুবই কম আছেন, যারা রাতে বাস চালাতে চায়। মূলত, এই শূন্যতা পূরণ করতে সাহায্য করার জন্য এটি নিখুঁত সমাধান।

তার কোম্পানি গত চার বছর ধরে শহরের নতুন স্ব-চালিত নাইট বাস তৈরির জন্য ব্যয় করেছে, যা কর্তৃপক্ষের মতে বিশ্বের যেকোনো জায়গায় এটি প্রথম।

পার্ক কাং-উক জানান, নিরিবিলি রাতের রাস্তাগুলো প্রযুক্তি পরীক্ষা করার জন্য আদর্শ জায়গা। তবে, এখনোও পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে।

প্রথমে স্টিয়ারিং হুইল নিজে থেকে চলার দিকে তাকানো, তারপর সেই অনুযায়ী বাম এবং ডানে বাসের ভূত দেখাই আপনাকে ভয়ে ভরিয়ে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। কিন্তু শীঘ্রই সেই অনুভূতি চলে যায়।

বাসে ওঠার পূর্বে বোর্ডে কিছু নিরাপত্তা ব্যবস্থা আছে। উদাহরণস্বরূপ, যাত্রীদের বসতে হবে এবং সর্বদা সিটবেল্ট পরতে হবে। চালকের আসনেও এমন কেউ আছেন, যিনি কিছু ভুল হলে বাসের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেন। তবে, স্টিয়ারিং ছেড়ে প্যাডেল থেকে পা তুলে বসেন ড্রাইভার। যাতে সবাই দেখতে পারেন বাসটি নিজে নিজেই চলছে। চালকের নির্দেশ ছাড়া।

তবে মিস্টার পার্ক কাং-উক জোর দিয়ে বলেন, শীঘ্রই চালকের কোনো প্রয়োজন হবে না। তবে, কয়েকবার চালককে চাকায় ব্রেক মারতে হয়েছে। কারণ- বাস নিয়ন্ত্রণকারী কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রতিটি ঘটনার জন্য এখনও প্রস্তুত নয়।

যদিও বাসটিতে ভ্রমণ করে অধিকাংশ যাত্রীরা মোটামুটি স্বস্তিতে ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাড়ি ফেরার পথে এক ছাত্র বলেন, “আমি এটা করার জন্য উত্তেজিত ছিলাম। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কারণে গভীর রাতের বাসের চালকদের উপর বোঝা কমাতে পারে।”

একজন নারী বলেন, আমার ধারণাই ছিল না এটি চালকবিহীন বাস! সত্যিই দারুণ! আশা করছি, সামনে আরও চালকবিহীন বাসে ভ্রমণের সুযোগ পাবো।

তবে নেদারল্যান্ডস থেকে আসা একজন ছাত্রকে কিছুটা কম আশ্বস্ত বলে মনে হয়েছিল। তিনি বলেন, “আমি বাসটিতে উঠতে কিছুটা নার্ভাস ছিলাম। ড্রাইভারকে বসে থাকতে দেখে আমাকে কিছুটা আশ্বস্ত হয়েছি। কিন্তু পরে বুঝতে পারলাম, চালক শুধু দেখানোর জন্য বসে আছে”।

ইউএস-ভিত্তিক সোসাইটি অফ অটোমোটিভ ইঞ্জিনিয়ার্স লেভেল ১ থেকে ৫ পর্যন্ত এভি শ্রেণীবদ্ধ করে। লেভেল-১, সবচেয়ে বেসিক, ক্রুজ কন্ট্রোলের মতো বৈশিষ্ট্যসহ যানবাহনের সাথে সম্পর্কিত। অন্যদিকে, লেভেল-৫ হল একটি সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় যান যা যেকোন পরিস্থিতিতে কাজ করতে পারে। তবে লেভেল-৫ বর্তমানে বিদ্যমান নেই।

আশার কথা, সিউলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে নতুন রাতের বাস একটি লেভেল-৩ বাহন, যার মানে নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে কিছু মানুষের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।

এই মুহুর্তে অপারেটিংয়ে সবচেয়ে উন্নত এভিগুলো চীন ও যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে। যাত্রীরা বেইজিং, ক্যালিফোর্নিয়া এবং অ্যারিজোনার কিছু অংশে লেভেল-৪ ট্যাক্সি নিতে পারেন। এই গাড়িগুলোর কোন নিরাপত্তা চালক নেই। তবে নির্দিষ্ট রাস্তা এবং রুটে লেগে থাকতে হবে।

স্ব-ড্রাইভিং প্রযুক্তি আসলে কতটা এগিয়ে যেতে পারে তা বিতর্কের বিষয়। তবে, ধীরে ধীরে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার ক্রমশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে জনসাধারণের মাঝে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ২:০৩ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

(244 বার পঠিত)
(204 বার পঠিত)
advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]