সোমবার ১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

ভর্তি পরীক্ষার ফর্ম বিক্রির সাড়ে ৩ কোটি টাকার হিসাব নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪ | প্রিন্ট

ভর্তি পরীক্ষার ফর্ম বিক্রির সাড়ে ৩ কোটি টাকার হিসাব নেই

পরপর তিনটি শিক্ষাবর্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) স্নাতক ১ম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার ফর্ম বিক্রির হিসাবে প্রায় সাড়ে ৩ কোটি টাকা নয়ছয়ের অভিযোগ উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আয়-ব্যয়ের পূর্ণাঙ্গ হিসাব না দেওয়ায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ করেছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্টরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে পাওয়া ভর্তি পরীক্ষার বার্ষিক আয়-ব্যয়ের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০২০-২১, ২০২১-২২ ও ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় প্রাথমিক আবেদন জমা পড়ে ৬ লাখ ১৭ হাজার ৯৪৯টি। আবেদন প্রতি ৫৫ টাকা ফির বিপরীতে আয় হয়েছে ৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। কিন্তু এ টাকা হিসাবে দেখানো হয়নি।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতি বছর ফর্ম বিক্রি করে আয় ১৫ থেকে ২৫ কোটি টাকা। তবে সে অর্থের আয়-ব্যয় নিয়ে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রকাশ করছে না প্রশাসন। বার্ষিক প্রতিবেদনে প্রাথমিক আবেদনের টাকা যোগ না করে শুধু চূড়ান্ত আবেদনের আয়ের হিসাব প্রকাশ করেই ক্ষান্ত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সেখানে আয়ের ৬০ শতাংশ পরীক্ষায় খরচের কথা বলা হলেও কোন খাতে কত টাকা খরচ হয় প্রকাশ করা হয়নি সে হিসাবও। এ নিয়ে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ তুলছে অনেকেই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষক মো. সোলাইমান চৌধুরী বলেন, প্রাথমিক আবেদন ফি ৫৫ টাকাকে যখন ২-৩ লাখ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে গুণ দেওয়া হয় তখন টাকার পরিমাণ অনেক বেড়ে যায়। আর সে হিসাবটা যখন বার্ষিক হিসাবে দেখানো হয় না, তখন সন্দেহ থেকে যায়। এখানে বড় ধরনের দুর্নীতি বা অনিয়মের সুযোগ আছে।

অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. ফরিদ উদ্দিন খান বলেন, বার্ষিক যে প্রতিবেদন সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি আয় অন্তর্ভুক্ত হবে। কিন্তু কেন প্রাথমিক আবেদনের আয়ের হিসাব অন্তর্ভুক্ত হয়নি সে টাকাটির হিসাব অবশ্যই প্রশাসনের কাছে জবাব থাকা উচিত বলে মনে করি।

রাবি পরিচালক অর্থ ও হিসাব দফতর (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. শেখ শামসুল আরেফিন বলেন, কোন গরমিল বা নয়ছয় হয়নি। মোবাইলে এ বিষয়ে কথা বলবো না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, এটা হিসাব বিভাগ এবং আইসিটি দফতরকেই প্রশ্ন করতে হবে। এখানে লুকোচুরি করার কোনো জায়গা নেই।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৬:০২ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪

ajkerograbani.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সম্পাদক ও প্রকাশক
মুহা: সালাহউদ্দিন মিয়া
সম্পাদকীয় কার্যালয়

২ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ সরণি, মগবাজার, ঢাকা-১২১৭। সম্পাদক কর্তৃক তুহিন প্রেস, ২১৯/২ ফকিরাপুল (১ম গলি), মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত।

ফোন : ০১৯১৪৭৫৩৮৬৮

E-mail: [email protected]