• শিরোনাম



    UTTARA UNITED COLLEGE

    #UUC_2020

    Posted by Uttara United College on Friday, 29 May 2020

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...


    “পিতৃ ঋণ”

    মনির উজ্জামান | ০৩ নভেম্বর ২০১৯ | ৪:০১ অপরাহ্ণ

    “পিতৃ ঋণ”

    একদিন এক যুবক তার বাবাকে এসে বললো ,বাবা” তুমি তো বলেছিলে পিতৃ ঋণ কোনো দিন শোধ হয় না।


    তুমি ছাব্বিশ বছরে আমার পিছনে যতো টাকা খরচ করেছো,
    তুমি কি জানো আমি আগামী তিন বছরের মধ্যে সে টাকা ফেরত দিতে পারবো।


    বাবা কিছুটা মুচকি হেসে ছেলেকে বললেন, “একটি গল্প শুনবি” ?

    ছেলেটি কিছুটা অপ্রস্তুত হয়ে গেলো। নিশচুপ করে বললো বল্ বাবা শুনবো”

    তোর বয়স যখন চার বছর আমার মাসিক আয় ছিল মাত্র দুই হাজার টাকা।

    ওই টাকায় সংসার চালানোর কষ্ট বাড়ির কাউকে কখনো বুঝতে দেই নি, আমি আমার সাধ্যের মধ্যে সব সময় চেষ্টা করেছি তোর মা” কে সুখী করতে।

    তোকে যেবার স্কুলে ভর্তি করলাম সেবার প্রথম আমি আর তোর মা” পরিকল্পনা করেছিলাম আমরা তোর পড়ার খরচের বিনিময়ে কি কি ত্যাগ করবো।

    সে বছর তোর মা’কে কিছুই দিতে পারিনি আমি!
    তুই যখন কলেজে উঠলি আমাদের অবস্থা তখন মোটামুটি ভালো।

    কিন্তু খুব কষ্ট হয়ে গিয়েছিল যখন তোর মা খুব অসুস্থ হয়ে পড়েছিল।

    ঔষধ কেনার জন্য রোজ রোজ ওভার টাইম করে লোকাল বাসে করে বা পায়ে হেঁটে বাড়ি ফিরতে খুব অসহ্য লাগতো।

    কিন্তু কখনো কাউকে বুঝতে দেইনি! এমন কি তোর মা’কে ও না।

    একদিন শো রুম থেকে একটা বাইক দেখে এসেছিলাম,
    সে রাতে আমি স্বপ্নে ও দেখেছিলাম আমি বাইকে চড়ে কাজে যাচ্ছি।

    কিন্তু পরের দিন তুই বায়না ধরলি ল্যাপটপ এর জন্য! তোর কষ্টে আমার কষ্ট হয়, বাবা আমি তোকে ল্যাপটপ কিনে দিয়েছিলাম।

    আমার তখনকার এক টাকা এখন কার এক পয়সা!
    কিন্তু মনে করে দেখ এই একটাকা দিয়ে তুই বন্ধু দের নিয়ে পার্টি করেছিস,ব্রান্ডনিউ মোবাইল হেডফোন কানে লাগিয়ে সারা রাত গান শুনেছিস, পিকনিক করেছিস,ট্যুরকরেছিস কনসার্ট দেখেছিস।

    তোর প্রতিটা দিন ছিল স্বপনের মতো। আর তোর একশ টাকা নিয়ে আমি এখন সুগার মাপাই।

    জানিস আমার মাছ,মাংস খাওয়া নিষেধ, কি করে এতো টাকা খরচ করি বল!

    তোর টাকা নিয়ে তাই আমি কল্পনায় হাঁট বসাই। সে হাঁটে আমি বাইক চালিয়ে সারা শহর ঘুরে বেড়াই, তোর মা’য়ের হাত ধরে তাঁত মেলায় ঘুরে বেড়াই।

    বাবা’রা নাকি “খাড়ুশ টাইপের” হয়। আমি ও আমার বাবাকে তাই ভাবতাম।

    পুরুষ থেকে পিতা হতে আমার কোনো কষ্ট হয়নি, সব কষ্ট তোর মা” সহ্য করেছে।

    কিন্তু বিশ্বাস কর পুরুষ থেকে দায়িত্বশীল পিতা হবার কষ্ট একজন পিতাই বোঝে।

    যুগে যুগে সর্ব স্থানে মাতৃবন্ধনা হলেও পিতৃ বন্দনা কোথাও দেখেছিস?

    পিতৃ বন্দনা আমি আশা ও করিনা। সন্তানের প্রতি ভালোবাসা কোনো পিতা হয়তো প্রকাশ করতে পারে না , তবে কোনো পিতা কখনোই সন্তানের প্রতি দায়িত্ব পালনে বিচ্যুত হয় না।

    আমি তোর পিছনে আমার যে কষ্ট অর্জিত অর্থ ব্যয় করেছি তা হয়তো তুই তিন বছরে শোধ দিতে পারবি, কিন্তু যৌবনে দেখা আমার স্বপ্ন গুলো?
    যে স্বপনের কাঠামোতে দাঁড়িয়ে তুই আজ তোর ঋণ শোধের কথা বলছিস, সেই স্বপ্নগুলো আর কোনোদিন বাস্তব রূপপাবে?

    আর যদি বলিস বাবা আমি তোমার টাকা না তোমার ভালোবাসা তোমাকে ফিরিয়ে দেব, তাহলে বলবো বাবাদের ভালোবাসা কখনোই ফিরিয়ে দেওয়া যায় না।

    তোকে একটা প্রশ্ন করি , ধর তুই আমি আর তোর খোকা এক নৌকায় বসে আছি, হঠাৎ নৌকা টা ডুবতে শুরু করলো, যে কোনো একজনকে বাঁচাতে পারবি তুই।

    কাকে বাঁচাবি? ছেলে হাজার কষ্ট করে ও এক চুল ঠোঁট নড়াতে পারছে না ।

    একটু পর বাবা বললেন উত্তর দিতে হবে না ।
    ছেলেরা বাবা হয় , বাবা কখনো ছেলে হতে পারে না।

    পৃথিবীতে সবচেয়ে ভারী জিনিস কি জানিস ?
    পিতার কাঁধে পুত্রের লাশ !

    আমি শুধু সৃষ্টি কর্তার কাছে একটি জিনিস চাই।
    আমার শেষ যাত্রায় যেন আমি আমার ছেলের কাঁধে চড়ে যাই।

    তাহলে তুই একটা ঋন শোধ করতে পারবি আর সেটা হলো কোলে নেওয়ার ঋণ !

    শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা
    পৃথিবীর সকল বাবাদের প্রতি ”

    Facebook Comments

    কোন এলাকার খবর দেখতে চান...

    webnewsdesign.com

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে আজকের অগ্রবাণী


  • Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/ajkerogr/public_html/wp-includes/functions.php on line 4344